ইসলামাবাদ: আঘাতের পালটা প্রত্যাঘাত৷ একেবারে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের মধ্যে প্রবেশ করে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে সেনা ঘাঁটি৷ ভারতের মিরাজ ২০০০ এর বহর দেখে সামনে আসার সাহস করেনি পাক বাহিনী৷ বিশ্ব আঙিনায় প্রমাণ হয়ে গেল যে, সেদেশে জঙ্গি রয়েছে এবং ভারতের সামরিক শক্তি কাছে পাকিস্তান নেহাৎ শিশু৷ ইমরান খানের বিরুদ্ধেই ‘ছিঃ ছিঃ’ স্লোগান পাক পার্লামেন্টে৷ এই অবস্থায় পীঠ বাঁচাতে পার্লামেন্টের যৌথ অধিবেশনের আহ্বান করেছেন স্পিকার৷

আরও পড়ুন: ভোররাত থেকে সোপিয়ানে শুরু সেনা জঙ্গি গুলির লড়াই

ভারতের এয়ার স্ট্রাইকের জেরে দিশেহারা ইসলামাবাদ৷ প্রথমে ভারতীয় বায়ু সেনার অভিযানকে প্রায় ফুৎকারে উড়িয়ে দিয়েছিল তারা৷ পরে কার্যত সেই অভিযানের সত্যতা স্বীকার করে নেয় পাকিস্তান সেনা৷ দেশের নিরাপত্তার হাল নিয়ে প্রবল আলোড়ন শুরু হয় গোটা পাকিস্তানজুড়ে৷ আন্তর্জাতিক দুনিয়ার পাশাপাশি নিজের ঘরেই কোণঠাসা হয়ে পড়ে ইমরান সরকার৷

এই পরিস্থিতিতে মঙ্গলবারই জরুরি ভিত্তিতে নিরাপত্তা বৈঠকের ডাক দেন পাক প্রধানমন্ত্রী৷ জাতীয় নিরাপত্তা কমিটির বৈঠকে উপস্থিত ছিল পাক সেনা প্রধান কামার জাভেদ বাজোয়া, বিদেশমন্ত্রী শাহ মামুদ কুরেশি, প্রতিরক্ষামন্ত্রকের উচ্চ পদস্থ কর্তা-সহ একাধিক আমলা৷ সীমান্ত লঙ্ঘন করে ভারতে যে হামলা চালিয়েছে, তা আন্তর্জাতিক মঞ্চে তুলে ধরতে মরিয়া পাকিস্তান। অর্গানাইজেন অব ইসলামিক কোঅপারেশন, রাষ্ট্রসঙ্ঘ এবং মিত্র দেশগুলির কাছে নয়াদিল্লির বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাবে ইমরানের সরকার৷

একই সঙ্গে ওই বৈঠকে কিস্তান বায়ু সেনার প্রস্তুতি সম্পর্কে অবগত করেছেন বিদেশমন্ত্রী কুরেশি। এমনকি সেনার তরফেও কী প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে তা নিয়ে সবিস্তারে আলোচনা হয়৷ এই বৈঠক শেষে পাক জনগণকে আগামী দিনে সবরকম পরিস্থিতির জন্য তৈরি থাকতে নির্দেশ দিয়েছেন ইমরান খান৷ তবে পাক পার্লামেন্টে ধিক্কার স্লোগান ওঠে ইমরানের বিরুদ্ধে৷

আরও পড়ুন: ভেবেছিলেন ভূমিকম্প… সকালে উঠে বোমার গর্ত, স্প্লিন্টার পেলেন বালাকোটের বাসিন্দারা

পীঠ বাঁচাতে আজ, বুধবার পাক পার্লামেন্টের যৌথ অধিবেশনের আহ্বান করেছেন স্পিকার৷ পাক সংসদ বিষয়কমন্ত্রী আলি মহম্মদ খান জানান, আমরা যুদ্ধের পরিস্থিতিতে এসে পড়েছি। গোটা দেশ একজোট হয়ে আছে। পার্লামেন্টে একসঙ্গে অধিবেশনের মাধ্যমেই সব সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
কেন সীমান্তে সেনার দুর্বলতা? ভারতীয় বাহিনী আকাশ পথে পাক অধিকৃত কাশ্মীরে ঢুকে এলেও কেন জানা গেল না? যুদ্ধ হলে কতটা প্রস্তুত পাকিস্তান? বিশ্বে কোনঠাসা অবস্তা থেকে বের হতেই বা কি পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে ইসলামাবাদের তরফে? যৌথ অধিবেশনে এইসব প্রশ্নে উত্তর দিতে পারে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷