নয়াদিল্লি: মার্কিন রিপোর্টকে ভুল প্রমাণিত করে F-16 ধ্বংস করার প্রমাণ আগেই প্রকাশ করেছে বায়ুসেনা। সংবাদসংস্থা সূত্রে বায়ুসেনার হাতে থাকা সেই প্রমাণের কথা জানা গিয়েছে। এরপরও ফের একবার এই ইস্যুতে নরেন্দ্র মোদী সরকারকে আক্রমণ করলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

সম্প্রতি এক মার্কিন পত্রিকায় রিপোর্টে বলা হয়, পাকিস্তানের F-16 গুঁড়িয়ে দেওয়ার যে দাবি ভারত করছে, তা সঠিক নয়। তাদের দাবি, পাকিস্তানের সবকটি F-16 অক্ষত রয়েছে।

এরপর শনিবার নিজের ট্যুইটার হ্যান্ডেলে ইমরান খান লিখেছেন, ‘সত্যিটা সামনে আসবেই। বিজেপি মিথ্যা দাবি করে আর যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা খেলে ভোটে জেতার চেষ্টা করছে। আর সেইজন্যই F-16 গুঁড়িয়ে দেওয়ার দাবি করা হয়েছে। মার্কিন প্রতিরক্ষা আধিকারিকরা জানয়ে দিয়েছেন যে পাকিস্তানের ফ্লিট থেকে কোনও F16 নিখোঁজ নয়।’

এদিকে ‘হিন্দুস্তান টাইমস’ পত্রিকার দাবি, মার্কিন প্রতিরক্ষা আধিকারিক জানিয়েছেন যে ওই ম্যাগাজিনে দেওয়া তথ্য সম্পর্কে তাঁরা অবগত নন। পাকিস্তানে কটি F16 আছে, সে ব্যাপারে আমেরিকা কোনও তদন্ত করছে বলে তাঁর জানা নেই।

মার্কিন ওই রিপোর্ট সামনে আসার পর, F-16 ধ্বংস হওয়ার খবর নিশ্চিত করেছে বায়ুসেনা। বায়ুসেনার তথ্য অনুযায়ী, পাকিস্তানের রেডিও সিগন্যালের প্রমাণও বলছে, ২৭ ফেব্রুয়ারির পর ফেরেনি পাকিস্তানের একটি F-16 যুদ্ধবিমান।

সূত্র বলছে, রেডিও ট্রান্সমিশন কলে রেসপন্স মেলেনি ওই F-16-এর। ভারতীয় বায়ুসেনা যে F-16 ধ্বংস করেছিল এবং তার পাইলট হাসপাতালে ভর্তি ছিল, এমন প্রমাণ বায়ুসেনার কাছে মজুত আছে বলেই দাবি। এয়ার ফোর্স বলছে, পাক অধিকৃত কাশ্মীরের ৭-৮ কিলোমিটার ভিতরে ওই F-16 গুঁড়িয়ে দেন অভিনন্দন। ৭-৮ সেকেন্ডের মধ্যেই রেডিও সিগন্যাল থকে উধাও হয়ে যায় সেটি।

আরও জানা গিয়েছে যে পাকিস্তানের সবজকোটে পাক পাইলটের প্যারাশ্যুটও দেখা গিয়েছিল। আর অভিনন্দনের প্যারাশ্যুট গিয়ে পড়ে তান্ডারে। দুটি জায়গার মধ্যে ৫-৬ কিলোমিটারের তফাৎ রয়েছে।