কলকাতা- মহামারীর আকার নিয়েছে করোনা। সারা বিশ্বের মানুষ এখন এই একটা বিষয় নিয়েই আতঙ্কে রয়েছে। ভারতেও করোনার ছায়া পড়েছে। একনও পর্যন্ত এই মারণ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এ দেশের ১০৭ জন। তাঁদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আক্রান্তের সংখ্যা মহারাষ্ট্রে। আর তাই এবার সেই কোপ পড়ছে বলিউডেও। আপাতত বন্ধ হচ্ছে বহু ছবির শ্যুটিং। ওয়েব সিরিজের শ্যুটিংও বন্ধ থাকছে।

অন্যদিকে টলি পাড়াতেও করোনার জেরে সচেতন হচ্ছেন তারকারা। অভিনেতা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় ও অর্পিতা চট্টোপাধ্যায়ের ছেলে মিশুকও বিদেশ থেকে ফিরেছে। আর তার জন্য যথেষ্ট সচেতনতা বজায় রাখছে পরিবার। অর্পিতা এক সংবাদমাধ্যমের কাছে জানাচ্ছেন, এই মুহূর্তে নিজেদেরই সচেতন থাকতে হবে। কিছুক্ষণ অন্তর অন্তর হাত পরিষ্কার করা, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করা এবং মুখে হাত দেওয়া বন্ধ করা উচিত।

অভিনেতা বিশ্বনাথ বসুও এই মুহূর্তে শ্যুটিং এর জন্য লন্ডনে রয়েছেন। তাই চিন্তায় রয়েছে তাঁর পরিবার। এক সংবাদমাধ্যমের কাছে তিনি বলছেন, করোনা নিয়ে কোনও উত্তেজনা নেই এখানে আলাদা করে। প্রোডাকশন থেকে আমাদের মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার দিয়েছে। আসলে এই করোনা ভাইরাস মানুষের মস্তিষ্কে প্রভাব ফেলেছে। ভয় আছে সকলেই। এখানেও সকলে ভয় রয়েছেন। তবে ভারত সরকার সবচেয়ে বেশি করোনা মোকাবিলায় তৎপর হয়েছে, যা সত্যি খুব ভালো বিষয়।

এই মুহূর্তে সৃজিত মুখোপাধ্যায় দক্ষিণ আফ্রিকায় রয়েছেন ছবির শ্যুটিং এর জন্য। অন্যদিকে রফিয়াত রশিদ মিথিলা রয়েছেন বাংলাদেশের। যেহেতু ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সমস্ত ভিসা বাতিল করা হয়েছে তাই তার আগে মিথিলা ও সৃজিতের দেখা হচ্ছে না। মিথিলা বলছেন, করোনার জেরে ভিসা পাওয়া যাবে না ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত। তাই তার আগে দেখা হচ্ছে না। ও যদি বাংলাদেশে তার আগে আসে দেখা হবে।

প্রসঙ্গত, সারা দেশে এই মুহূর্তে মোট ১০৭ জন করোনায় আক্রান্ত। করোনায় আক্রান্ত হয়ে ইতিমধ্যেই মৃত্যু হয়েছে ২ জনের। তাঁরা কর্ণাটক ও দিল্লির বাসিন্দা।