স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : সময়ের একদিন আগেও চলে আসতে পারে বর্ষা। এমনটাই খবর হাওয়া অফিস সূত্রে। আবহাওয়াবিদরা বলছেন ৩১ মার্চেই কেরলে আসতে পারে বর্ষা। সাধারণত এক তারিখ এখানে বর্ষা আসে। নতুন আপডেট বলছে তা একদিন আগেও চলে আসতে পারে। না আসলে তারপরের চার দিনের মধ্যে যে আসছে সেটাও বলে দিয়েছে হাওয়া অফিস।

২০১৬ সালে কেরলে বর্ষা এসেছিল ৭ জুন, ২০১৭সালে কেরলে বর্ষা এসেছিল ৩০মে ২০১৮ সালে কেরলে বর্ষা এসেছিল ২৯মে ২০১৯ সালে কেরলে বর্ষা এসেছিল ৮ জুন ২০২০ সালে কেরলে বর্ষা এসেছিল ৫ জুন। মৌসুমী বায়ু ভারতের মূল ভূখণ্ডের খুব কাছেই রয়েছে। সাম্প্রতিক বর্ষার আপডেট বলছে খুব বেশি হলে হাতে আর পাঁচদিন।

২১ তারিখেই বর্ষার মেঘ পৌঁছে যাবে আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জে। এমনটাই জানাচ্ছে হাওয়া অফিস। জুন মাসের শুরুতেই দেশে আসবে বর্ষা এ কথা আগেই জানিয়েছে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর। কিন্তু রাজ্যে বর্ষা কবে আসবে? সেই তথ্য দিল হাওয়া অফিস।

জানা যাচ্ছে সব কিছু ঠিকঠাক এগোলে রাজ্যে ১৫ জুনের মধ্যেই বর্ষা চলে আসবে। কেরলের বর্ষা যদি দেরিও করে তার প্রভাব সাধারণত পড়ে না বাংলার বর্ষা আগমনের উপর। এবারও তেমনটাই হবে বলে জানিয়েছে হাওয়া অফিস। আসলে বর্ষা প্রথমে পাহাড়ে আসে তারপর ধীরে ধীরে তা ঘেরে বাংলাকে।

এমন ভাবেই আট থেকে দশ তারিখের মধ্যে যদি বাংলায় প্রবেশ করে বর্ষার মেঘ আবহাওয়াবিদরা আশা করছেন ১৫ জুনের মধ্যে তা ঘিরে ফেলবে দক্ষিণবঙ্গসহ সারা বাংলাকে। সেই অনুযায়ী বাংলায় বর্ষা পুরোপুরি আসতে ওই মাঝ জুন। অর্থাৎ সেই অনুযায়ী দেখতে গেলে আবার পয়লা আষাঢ়ের মধ্যেই বর্ষা চলে আসবে সারা রাজ্যে। এমনটাই খবর হাওয়া অফিস সূত্রে।

প্রসঙ্গত, হাওয়া অফিসের লং রেঞ্জ ফোরকাস্ট আগে বলেছিল যথা সময়েই দেশে আসবে বর্ষা। বিগত কয়েক বছরে বর্ষা কেরলে আসতো দুই একদিন দেরি করেছে। এবার আর তা হবে না। একদম দেরি করবে না বর্ষা। স্বাভাবিক সময়েই তা দেশে প্রবেশ করবে বলেই জানিয়েছে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর।

কেরলে বর্ষা আসার স্বাভাবিক সময় পয়লা জুন। তারপর দেশের বিভিন্ন প্রান্তে তা ছড়িয়ে পড়ে। বিগত দুই বছর এমনটা দেখা যায়নি। এবার তা ফিরবে স্বাভাবিক সময়ে। জানিয়েছে কেন্দ্রীয় আবহাওয়া দফতর। আবহাওয়াবিদরা জানাচ্ছেন ১ জুন কেরলে বর্ষা ঢুকবে। তারপর আট জুন তা পশ্চিমবঙ্গে প্রবেশ করার কথা। তার দুই এক দিন পরেও হতে পারে। খুব বেশি ১৫ জুনের মধ্যে তা বাংলায় চলে আসবে।

তবে এবারে যা গতিবিধি তা আট জুনেই ঢুকে পড়তে পারে বাংলায়। বর্ষার মূল সময় জুন থেকে সেপ্টেম্বর। দেশে বার্ষিক বৃষ্টির ৯৮ শতাংশ হবে ওই সময়ে। এই মরশুমে কেমন বর্ষা হবে তা আগে একবার জানিয়েছিল হাওয়া অফিস। সময় অন্তর সেই পূর্বাভাস আবারও দেওয়া হয়। নয়া পূর্বাভাসেও বিশেষ কিছু পরিবর্তন হয়নি। ইন্ডিয়া মেটেরোলজিক্যাল ডিপার্টমেন্টের বা IMD জানাচ্ছে এই মরশুমে বর্ষার পরিমাণ স্বাভাবিকই থাকবে। সেই অনুযায়ী, টানা তিন বছর দেশে স্বাভাবিক হতে চলেছে বর্ষা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.