স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: বেশ কিছু দিন থেকে এলাকায় রমরমিয়ে চলছিল বেআইনিভাবে মদ বিক্রি৷ আর তাতেই নেশায় আসক্ত হয়ে পড়ছে এলাকার পুরুষ সমাজ৷ তার জেরেই পবিবারে বেড়েই চলছে অশান্তি৷ এরই প্রতিবাদে শুক্রবার দুপুরে বহরমপুরের কাশিমবাজার এলাকায় একটি বাড়িতে ভাঙচুর চালাল এলাকার মহিলারা৷

মহিলাদের অভিযোগ, বেশ কিছু দিন ধরে কাশিমবাজার দীঘির পার এলাকায় বেআইনিভাবে মদ বিক্রি করত স্থানীয় বেজেন মণ্ডল, স্বপন দাস ও রঘুনাথ দাসের পরিবার৷ কাজের পর সেই মদের আসরে বসত এলাকার পুরুষরা৷

আরও পড়ুন: ধোনি না প্রসাদ! ফাটকায় সেরা কোন ‘এমএস’?

এমনকি এলাকার যুব সমাজও এই মদের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছিল৷ এর জেরেই ওই এলাকার প্রায় প্রতিটি পরিবারে ঝামেলা লেগেই থাকত৷ দিনের শেষে কাজের টাকা বাড়িতে না দিয়ে সেই টাকা মদের পিছনে উড়িয়ে দিত পুরুষরা৷

ঘটনার কথা বারবার প্রশাসনকে জানিয়েছিলেন এলাকার মহিলারা৷ কিন্তু তাতে কোনও সুরাহা হয়নি৷ সমস্যার কোনও সমাধান হয়নি৷ একপ্রকার প্রশাসনের মদতে এই বেআইনি মদের ব্যবসা চলছে এই এলাকায়৷ আর তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এলাকার মহিলারা৷

আরও পড়ুন: বন্ধ হয়ে গেল বৈশাখী ব্রিজ

এলাকার মহিলারা জানিয়েছে, মদ বিক্রির কথা ওই পরিবারগুলিকে জানানো হলে তারা অকথ্য ভাষায় কথা শোনাতো তাঁদের৷ তাই তাঁরা বাধ্য হয়ে এদিন দুপুরে এক মদ বিক্রেতার বাড়িতে ভাঙচুর চালায়৷ বেশ কিছু বেআইনি মদের বোতলও তাঁরা ভেঙে দেয়৷ যদিও ঘটনার পর থেকেই পলাতক অভিযুক্তরা।

এই বিষয়ে বেআইনি মদ বিক্রেতা অর্চনা দাস জানান, তার ছেলের অসুস্থতার কারণে তারা এই বেআইনি মদ বিক্রি করে। এই মদ বিক্রি বেআইনি জানা সত্ত্বেও তারা এই কাজ করতে বাধ্য হয়৷ তবে এই মদ বিক্রির জন্য খাগড়া ফাঁড়ির পুলিশ মাসে মাসে টাকা নিয়ে যায় বলেও অর্চনা দেবী জানিয়েছে৷

আরও পড়ুন: বাঁকুড়ায় কবিতা উৎসব উদ্বোধনে পদ্মশ্রী হলধর নাগ