মুম্বই: যুদ্ধযান এবার আরও স্মার্ট। সাবমেরিন চালাতে লাগবে না কোনও মানুষ। খোদ সাবমেরিনের নিজেরই আস্ত ব্রেন থাকবে। এমন পরিকল্পনাই চলছে আইআইটি বম্বের ছাত্রদের। ‘মৎস্য’ নামে এই প্রজেক্ট নিয়ে কাজকর্ম করছে আইআইটির ছাত্ররা। দীর্ঘদিন ধরেই এই বিষয়ে গবেষণা চালাচ্ছে তাঁরা। এই জলের তলার যানটি নিজেই নিজের গতি বা চলাফেরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে।

যদি এই প্রজেক্টটি সফল হয় তাহলে ভারতের প্রতিরক্ষার ভবিষ্যৎটাই পাল্টে যাবে। এই সাবমেরিন এতটাই তুখড় হবে যে এর চারপাশে কোনও কিছু আছে কিনা, তা বুঝতে পারবে সহজেই। সেইমত নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করবে বা প্রতিক্রিয়া দেবে। বর্তমানে ভারতীয় নৌবাহিনীতে যে সব স্বয়ংক্রিয় যান রয়েছে তা রিমোটে কোথাও থেকে কন্ট্রোল করা হয়। কিন্তু ‘মৎস্য’র ক্ষেত্রে সেই যানটি হবে সম্পূর্ণ স্বাধীন।

আমেরিকা ও চিনের কাছে ইতোমধ্যেই রয়েছে স্বয়ংক্রিয় সাবমেরিন। হিন্দু দেবতা বিষ্ণুর অবতারের নামেই ‘মৎস্য’ নামকরণ করা হয়েছে। ‌কোনও সামরিক অভিযানে নামলে নিজেই সিদ্ধান্ত নিতে পারবে এই যান। আইআইটির এই প্রজেক্টের নেতৃত্বে রয়েছে ২১ বছরের বরুণ মিত্তল।

এর মাধ্যমে সমুদ্রের গভীরতাও মাপা যাবে সহজেই। ২০১১-র আগে কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে এই যান বানানোর চেষ্টা করেছিল আইআইটি দিল্লি ও মাদ্রাজ, কিন্তু তারা সফল হয়নি। তবে এবার যা বানানো হচ্ছে তা আগে কখনও সম্ভব হয়নি বলেই জানিয়েছে আইআইটি বম্বের ছাত্ররা।

আইআইটির বিভিন্ন বিভাগ থেকে মোট ৩০ জন ছাত্র এই প্রজেক্টে অংশ নিয়েছে। তারা প্রত্যেকদিন ক্লাসের পর রাত সাড়ে ৯টা থেকে সাড়ে ১২টা পর্যন্ত কাজ করছে। ছুটির দিনে আরও বেশি কাজ করে তারা।