কলকাতা: অপেক্ষা ছিল রেফারি রিপোর্ট হাতে পাওয়ার। বুধবার সেই রিপোর্ট জমা পড়তেই পিয়ারলেস ম্যাচে রেফারি নিগ্রহের ঘটনায় ইস্টবেঙ্গল ম্যানেজার, গোলকিপার কোচ ও দুই ফুটবলারকে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিল আইএফএ।

সচিব জয়দীপ মুখার্জি আগেই জানিয়েছিলেন দোষ করলে কেউই ছাড় পাবে না। সেইমতো এদিন রেফারির রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর আইএফএ’র শৃঙ্খলারক্ষা কমিটির সভায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গৃহীত হল। একবছরের জন্য সাসপেন্ড করা হল লাল-হলুদ ম্যানেজার দেবরাজ চৌধুরী ও গোলরক্ষক কোচ তথা প্রাক্তন ফুটবলার অভ্র মন্ডলকে। একইসঙ্গে ১টি করে ম্যাচ সাসপেন্ড করা হয়েছে দুই ফুটবলার লালরিনডিকা রালতে ও মেহতাব সিং’কে। একইসঙ্গে এক লক্ষ টাকা করে জরিমানাও করা হয়েছে দুই ফুটবলারকে।

৭২ ঘন্টার মধ্যে জরিমানার টাকা না দিলে দুই ফুটবলারের ক্ষেত্রে সাসপেনশন একবছর পর্যন্ত বর্ধিত করা হবে বলে জানিয়েছে আইএফএ। তবে এযাত্রায় রক্ষা পেয়েছেন লাল-হলুদের স্প্যানিশ মিডিও হাইমে কোলাডো। মাঠে মেজাজ হারিয়ে বিপক্ষ গোলরক্ষকের সঙ্গে অভব্য আচরণ ও ম্যাচ শেষে রেফারির উপর চড়াও হওয়ার ঘটনায় ব্ল্যাক লিস্টে ছিলেন এই স্প্যানিয়ার্ডও। তবে রেফারি কার্ড না দেখানোয় রেহাই মিলল হাইমের। তাঁকে সতর্ক করে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এদিন রেফারি রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর আত্মপক্ষ সমর্থনের আইএফএ অফিসে ডাকা হয়েছিল দেবরাজ-অভ্র-ডিকাদের।

সাম্প্রতিক অতীতে বড় দলের বিরুদ্ধে এত স্বল্প সময়ে আইএফএ’র এহেন কঠিন পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্ত বিরল। তাই নয়া সচিবের অধীনে ৭২ ঘন্টার মধ্যে ইস্টবেঙ্গলের মত দলের বিরুদ্ধে এমন পদক্ষেপ নেওয়ার ঘটনা ভীষণই উল্লেখযোগ্য। সাসপেন্ড হওয়ার দরুণ আগামী একবছরের জন্য আইএফএ পরিচালিত কোনও টুর্নামেন্টে ডাগ-আউটে বসতে পারবেন না ইস্টবেঙ্গলের তরুণ ম্যানেজার দেবরাজ চৌধুরী ও গোলরক্ষক কোচ অভ্র মন্ডল।

এদিকে বুধের সন্ধ্যায় ইস্টবেঙ্গল ক্লাবে বসেছিল কার্যকরী সমতির বৈঠক। যেখানে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের সভাপতি প্রণব দাশগুপ্ত, সচিব কল্যাণ মজুমদার সহ কোয়েস ইস্টবেঙ্গলের সিইও সঞ্জিত সেন। মূলত তিনটি বিষয়ে সেখানে আলোচনা হয়। ক্লাবের পারফরম্যান্স পর্যালোচনা করে কোচের সঙ্গে আলোচনায় বসার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে বৈঠকে। পাশাপাশি পিয়ারলেস ম্যাচে অনভিপ্রেত ঘটনার জন্য সমস্ত মহলের কাছে দুঃখপ্রকাশ করেন অন্যতম শীর্ষকর্তা দেবব্রত সরকার।

তিনি জানান, আইএফএ যে শাস্তিই প্রদান করুক, ক্লাব তা মাথা পেতে নেবে। একইসঙ্গে পিয়ারলেস ম্যাচে পুলিশের অতি সক্রিয়তার ঘটনা যথাস্থানে চিঠি দিয়ে জানানোর বিষয়টি উল্লেখ করেন দেবব্রত সরকার। পাশাপাশি আগামিদিনে সমর্থকেরা নির্দ্বিধায় যাতে গ্যালারিতে নিরাপত্তার ঘেরাটোপে বসে খেলা উপভোগ করতে পারেন, সে বিষয়টিও নিশ্চিত করার কথা জানান তিনি।