স্টাফ রিপোর্টার, বসিরহাট: এবার সরকারি অফিসে নির্ধারিত টাইমের অতিরিক্ত কাজ করলে কর্মীদের ইনসেনটিভ দেবে রাজ্য সরকার৷ বুধবার বসিরহাটে প্রশাসনিক বৈঠকে এই ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

বুলবুলে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করতে বুধবার গেলেন উত্তর ২৪ পরগণার বসিরহাটে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী৷ বিধ্বস্ত এলাকাগুলি আকাশপথে পরিদর্শন করার পর প্রশাসনিক বৈঠক করেন তিনি৷ সেখানেই প্রশাসনিক কর্তা, কর্মীদের উদ্দেশে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “এখন ইমার্জেন্সি। আপনারা একটু বেশি করে কাজ করুন। আট ঘণ্টার জায়গায় ১২ ঘণ্টা কাজ করুন। দরকার হলে সরকার ইনসেনটিভ দেবে। কিন্তু আগে দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে।”

বসিরহাটে বুলবুলের তাণ্ডবে প্রাণ গিয়েছে পাঁচ জনের। মুখ্যমন্ত্রী ঘোষণা করেন, মৃতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণের চেক দেওয়া হবে। মুখ্যমন্ত্রী এ দিন বলেন, ‘‘ভয়াবহ পরিস্থিতি। কলকাতা থেকে বোঝা যায় না কতটা ক্ষতি হয়েছে।”

বৈঠকে তিনি বলেন, সবমিলিয়ে মোট ১৫ লক্ষ হেক্টর জমি নষ্ট হয়েছে। ভেঙে গিয়েছে ৫ লক্ষেরও বেশি ঘর-বাড়ি। কাজেই যত শীঘ্র সম্ভব বাড়ি বানিয়ে দেওয়া হবে। পাম্পিং-এর মাধ্যমে চাষের জমির জল বের করার চেষ্টা হবে। বলেন, চাষীদের পাশে রয়েছে রাজ্য সরকার।

গ্রামে গ্রামে মোবাইল হেলথ টিম পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রশাসনের প্রশংসাও শোনা যায় মুখ্যমন্ত্রীর গলায়। তিনি বলেন, “এক লক্ষ ৭০ হাজার মানুষকে আশ্রয় দেওয়া গিয়েছিল। এটা একটা বড় কাজ। কিন্তু এখন যে এলাকায় জল জমে রয়েছে, সে সব জায়গায় দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে।” প্রশাসনকে মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ, বেবী ফুড, শুকনো খাবার, জ্বরজালার ওষুধ, ওআরএস—সব বেশি বেশি করে বিলি করুন। এই কাজ করতে যদি বাড়তি লোকবলের দরকার হয়, তাহলে ১০০ দিনের কাজের প্রকল্পে লোক নেওয়ারও নির্দেশ দেন মুখ্যমন্ত্রী।

নানান সময়ে দুর্যোগের পর ত্রাণ বিলি নিয়ে রাজনীতির অভিযোগ ওঠে। সেই কারণে ত্রাণের কাজে যাতে রাজনীতির রং না দেখা হয় সে ব্যাপারে সতর্ক করে দেন মুখ্যমন্ত্রী। সব মানুষ যেন ত্রাণ পায় সেদিকেই নজর রাখার নির্দেশ দেন৷ তিনি বলেন, এটা এর ঘর, ওটা তার ঘর বাছবিচার করবেন না।”

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।