নয়াদিল্লি: চলতি বছর অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে টি২০ বিশ্বকাপ স্থগিত হলে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের পূর্ণ অধিকার রয়েছে আইপিএল আয়োজন করার। সাফ জানালেন ক্যারিবিয়ান পেস গ্রেট মাইকেল হোল্ডিং।

উল্লেখ্য, করোনা ভাইরাসের জেরে চলতি বছর যথাসময়ে (২৯ মার্চ) শুরু করা যায়নি ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগ আইপিএল। আগামী ১৮ অক্টোবর থেকে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে শুরু হওয়ার কথা টি২০ বিশ্বকাপ। কিন্তু মারণ ভাইরাসের জেরে এখনও সেদেশে বলবৎ রয়েছে সীমান্ত পারাপারে নিষেধাজ্ঞা। আগামী অক্টোবরেও যদি এই নিষেধাজ্ঞা জারি থাকে তাহলে বিশ্বকাপ চলতি বছর স্থগিত রেখে ২০২২ অবধি পিছিয়ে দেওয়ার জল্পনা কান পাতলেই শোনা যাচ্ছে। আর বিশ্বকাপ সত্যিই পিছিয়ে গেলে সে উইন্ডোকেই আইপিএল আয়োজনের মঞ্চ হিসেবে কাজে লাগাতে চাইছে বিসিসিআই।

অনেকে যদিও আবার বিষয়টিকে অভিসন্ধি হিসেবে দেখছে। তাদের কথায়, আইপিএল আয়োজনের পথ সুগম করে দিতে চলতি বছর বিশ্বকাপ পিছিয়ে দেওয়ার চেষ্টা চালাচ্ছে আইসিসি। কিন্তু বিষয়টি কোনওমতেই মানতে চান না হোল্ডিং। তাঁর কথায়, ‘আমার মনে হয় না আইপিএলের রাস্তা পরিষ্কার করে দিতে বিশ্বকাপ পিছিয়ে দিতে চাইছে আইসিসি। এটা সম্পূর্ণভাবে অস্ট্রেলিয়া সরকারের হাতে। তারা নির্দিষ্ট একটি সময়ের আগে সীমান্ত পেরিয়ে তাদের দেশে কাউকে প্রবেশের অনুমতি দিতে চায় না।’

একটি ইনস্টাগ্রাম লাইভে পেস গ্রেট আর বলেন, ‘টি২০ বিশ্বকাপ না হলে বিসিসিআই’য়ের ওই ফাঁকা সময়ে ঘরোয়া টুর্নামেন্ট আয়োজন করার সমস্ত অধিকার রয়েছে। কারণ তারা অন্য কোনও টুর্নামেন্টের মধ্যে অনধিকারপ্রবেশ করছে না। তেমনটা হলে না হয় বলা যেত।’ একইসঙ্গে বল পালিশে লালা ব্যবহার বন্ধ করলে এমন কোনও সমস্যা হওয়ার কথা নয় বলে জানান কিংবদন্তি। উল্লেখ্য, করোনা পরবর্তী সময় বাইশ গজে সংক্রমণ রুখতে বল পালিশে লালা ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব এনেছে অনিল কুম্বলে নেতৃত্বাধীন আইসিসি ক্রিকেট কমিটি।

এপ্রসঙ্গে হোল্ডিং জানান, ‘আমার মনে হয় না লালার ব্যবহার বন্ধ এমন কোনও সমস্যায় ফেলবে। শুধুমাত্র মানিয়ে নিতে কিছুটা সময় লাগবে বলে মনে হয় আমার। বাইশ গজে বল পালিশে লালার ব্যবহারটা অনেকটা সহজাত প্রতিবর্ত ক্রিয়ার মতো।’ হোল্ডিংয়ের কথায় বল পালিশে ঘামও সমান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। বর্ষীয়ান কিংবদন্তি বলছেন, ‘বলে আর্দ্রতা পাওয়া নিয়ে কথা। সেটা তুমি ঘাম থেকেও পর্যাপ্ত পেতে পারো। লালার কোনও প্রয়োজনই নেই। মুখের লালা যা কাজ করে হাতের বা কপালের ঘামও সেই একই কাজ করে। আর কোভিড১৯ ঘাম থেকে সংক্রামিত হয় বলে আমি শুনিনি।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ