প্রতীকী ছবি

জেরুজালেম: প্রয়োজন হলে গাজায় আরও হামলা করবে ইজরায়েল৷ শনিবার ইজরায়েল সেনাবাহিনীর মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রোনেন মানেলিস এই হুঁশিয়ারি দেন৷ বলেন, শুধু সীমান্ত নয়, বাড়াবাড়ি করলে অন্যান্য জায়গা থেকে সন্ত্রাসীদের খুঁজে খুঁজে মারা হবে৷

ইজরায়েলের এই হুঁশিয়ারির কারণ শুক্রবার ইজরায়েল সেনাবাহিনীর গুলিতে ১৬ জন ফিলিস্তিনিয় মারা যান৷ আহত হয়েছেন দেড় হাজারের বেশি৷ ঘটনাটি ঘটে গাজা-ইজরায়েল সীমান্তের কাছে৷ ওই দিন হাজার হাজার ফিলিস্তিনীয় গাজা সীমান্তে জড়ো হয়৷ সাম্প্রতিক কালে এখনও অবধি এটাই সবচেয়ে বড় জমায়েত৷

১৯৪৮ সালে ইজরায়েলের স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় যারা বাড়ি ঘর ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন তাদের বংশধরদের প্রবেশের অধিকার দেওয়া হোক৷ এই দাবি জানিয়ে শুক্রবার গাজা সীমান্তে বিশাল জমায়েত করেন তারা৷ তাদের উপর ইজরায়েল সেনা নির্বিচারে গুলি চালায়৷ বিক্ষোভকারীদের ওপর ড্রোন ব্যবহার করে টিয়ারশেল নিক্ষেপ করা হয়েছে৷

এছাড়া হামাসের তিনটি ঘাঁটিতে ট্যাঙ্ক ও বিমান হামলা করা হয়েছে৷ তাতে ১৬ জন মারা যায়৷ দেড় হাজার জখম হয়েছে৷ ২০১৪ সালের পর এই প্রথম এতটা রক্ত ঝরল ইজরায়েল-প্যালেস্তাইন সংঘর্ষে৷

এই ঘটনার পরই জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস ‘স্বাধীন ও স্বচ্ছ’ তদন্তের আহ্বান জানিয়েছেন৷ গাজা উপত্যকায় পরিস্থিতির আরও অবনতি হবার আশঙ্কা থেকে এই আহ্বান জানান তিনি৷ নিরাপত্তা পরিষদে ঘটনার তাৎক্ষণিক শুনানি হয়৷

ইজরায়েল এই ঘটনার জন্য হামাসকে দায়ী করেছে৷ একটি লিখিত বক্তব্যে দাবি করা হয়েছে যখন ইহুদিরা সবাই ছুটি কাটাতে ব্যস্ত, তখন হামাস ইজরায়েলের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে৷ এই বিক্ষোভকে কাজে লাগিয়ে হামাসের সদস্যরা ইহুদি রাষ্ট্রটিতে প্রবেশ করতে চেয়েছে এবং নাশকতা করার পরিকল্পনা করেছে৷