দাভোস: মন্ত্রী না হলে রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান সংস্থা এয়ার ইন্ডিয়া কিনে নেবার জন্য দরপত্র জমা দিতেন। বৃহস্পতিবার এমনই মন্তব্য করেছেন কেন্দ্রীয় বাণিজ্যমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল।

মন্ত্রী এখনো মনে করেন এই রাষ্ট্রয়ত্ত বিমান সংস্থা টিম সোনার খনির মতোই মূল্যবান। এই সংস্থার হাতে শুধুমাত্র মূল্যবান বিমান আছে তা নয়, এই সংস্থাটি অত্যন্ত দক্ষতার সঙ্গে কাজ করছে বলে তিনি দাবি করেন। বাণিজ্যমন্ত্রী এই বিমান সংস্থার প্রশংসার কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন, গোটা দুনিয়া জুড়ে থাকা এয়ার ইন্ডিয়ার বেশ কিছু চুক্তি। ফলে মন্ত্রী এ দিন দাবি করেছেন, এয়ার ইন্ডিয়া যা আছে অন্য কোনও সংস্থান নেই।

টাটাদের হাত ধরে এয়ার ইন্ডিয়া তৈরি হলেও পরবর্তীকালে সরকার তা অধিগ্রহণ করে। দীর্ঘদিন একচেটিয়া বাজার ছিল এয়ার ইন্ডিয়ার। কিন্তু ৯০দশকের পরে বেসরকারি বিমান সংস্থাগুলি বাজারে এলে প্রতিযোগিতার মুখে পড়তে হয়। বেশ কয়েক বছর ধরে মুনাফার বদলে ক্ষতি হচ্ছে এই সংস্থার। ফলে সংস্থার ঋণের বোঝা বেড়েছে।

অন্যদিকে কেন্দ্রীয় সরকার ও চাইছে এই রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান সংস্থাটিকে বেচে দিতে। মোদি সরকার ইন্ডিয়া বেচার বেশ কিছু উদ্যোগ নিলেও তা কার্যকরী হয়নি। অন্যদিকে সম্প্রতি এয়ার ইন্ডিয়া বিক্রি করা না গেলে তা বন্ধ করে দেয়া হবে বলেও হুঁশিয়ারি দিতে দেখা গিয়েছে অসামরিক বিমান মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরিকে। ফলে এই রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থায় কর্মরত কর্মীও অফিসারদের দুশ্চিন্তা বেড়েছে।

এই পরিস্থিতিতে আবার পীযূষ গোয়েল এর এমন মন্তব্য বিভিন্ন মহলে শোরগোল তুলেছে। কেউ কেউ মনে করছেন, এই রাষ্ট্রায়ত্ত বিমান সংস্থাটিকে বেচতে ব্যর্থ হওয়ায় তবে কি এবার খোদ বাণিজ্যমন্ত্রী এই বিমানসংস্থা বেচার জন্য প্রচারে নামছেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।