কোচবিহার: দল ছেড়েছেন আগেই। এবার বিধায়ক পদ ছেড়ে দিতেও রাজি মিহির গোস্বামী। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বললে তবেই তিনি বিধায়ক পদ ছেড়ে দিতে রাজি আছেন বলে তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে পাল্টা চিঠি দিয়েছেন কোচবিহার দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক। এর আগে গত ৬ জানুয়ারি মিহির গোস্বামীকে বিধায়ক পদজ ছেড়ে দিতে বলে আইনি চিঠি দিয়েছিলেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে লেখা চিঠিতে মিহির গোস্বামী লিখেছেন, ‘বাম ও কংগ্রেস ছেড়ে অনেকে গত পাঁচ বছরে তৃণমূলে এসেছেন। তাঁদের মধ্যে কয়েকজন পরে সাংসদও হয়েছেন। ১৯ জন এখনও বিধায়ক পদে রয়েছেন। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আমাকে বললে আমি বিধায়ক পদ ছেড়ে দিতে রাজি আছি।’ কোচবিহার দক্ষিণ কেন্দ্রের বিধায়ক মিহির গোস্বামী। দীর্ঘদিন তৃণমূলে ছিলেন।

তবে গত বছরের নভেম্বরে তৃণমূল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেন। দলের শীর্ষ নেতৃত্বের প্রতি ক্ষোভ ছিল তাঁর। প্রকাশ্যে সাংবাদিক সম্মেলন করে সেকথা জানিয়েছিলেন তিনি। দিল্লিতে বিজেপির সদর দফতরে গিয়ে দলবদল করেন মিহিরবাবু। তবে দলবদল করলেও এখনও বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেননি মিহির গোস্বামী। চলতি মাসের ৬ তারিখ মিহির গোস্বামীকে বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দিতে বলে আইনি চিঠি দেন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এবার পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সেই চিঠিরই জবাব দিয়েছেন মিহির গোস্বামী।

এদিকে, বিধানসভা ভোটের মুখে অস্বস্তি বেড়েছে শাসকদলে। একের পর এক তৃণমূল বিধায়ক-নেতা যোগ দিচ্ছেন বিজেপিতে। গত নভেম্বর মাসেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপির অন্যতম শীর্ষ নেতা অমিত শাহের উপস্থিতিতে হাফ-ডজন তৃণমূল বিধায়ককে সঙ্গে নিয়ে বিজেপিতে যোগ দেন একদা শাসকদলের ডাকসাইটে নেতা শুভেন্দু অধিকারী। বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন বাম ও কংগ্রেসের আরও তিন বিধায়ক। সব মিলিয়ে বিধানসভা ভোটের মুখে দলবদলের রাজনীতিতে শাসকদলকে জোর টক্কর দিচ্ছে গেরুয়া শিবির।

গতকালই ফের এক তৃণমূল বিধায়ক দল ছেড়েছেন। বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন শান্তিপুরের তৃণমূল বিধায়ক। কেন্দ্রীয় নেতা তথা রাজ্যের পর্যবেক্ষক কৈলাশ বিজয়বর্গীয়ের হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দেন অরিন্দম ভট্টাচার্য। তাঁর সঙ্গেই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন তাঁর বহু অনুগামী। বিধানসভা ভোটের আগে অরিন্দমের দলবদল শাসকদলের কাছে বড় ধাক্কা হিসেবেই মনে করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, তৃণমূলের আগে কংগ্রেসে ছিলেন অরিন্দম ভট্টাচার্য। ২০১৬-র বিধানসভা নির্বাচনে বাম-কংগ্রেস জোটের প্রার্থী হিসেবে জিতেছিলেন তিনি। পরের বছরই তৃণমূলে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। কংগ্রেস প্রার্থী হিসেবে জয়ের পরে ২০১৭-য় তৃণমূলে অরিন্দম ভট্টাচার্য। এবার তিনি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন, এমন জল্পনা বেশ কিছুদিন ধরেই চলছিল। শেষমেশ সব জল্পনায় জল ঢেলে দিল্লিতে গিয়ে বুধবারই বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন তিনি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।