মুম্বই: সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি বৃহস্পতিবার ভোপালে একটি নির্বাচনী সভা থেকে বলেন, রামায়ণ মহাভারত হিংসায় ভরা৷ এর থেকেই প্রমাণ হয় হিন্দুরা কত হিংস্র৷

এই বক্তব্য সামনে আসতেই বিরোধিতা এবং সমালোচনার ঝড় ওঠে হিন্দু সংগঠন ও দলগুলির পক্ষ থেকে৷ সীতারামের বক্তব্যের প্রেক্ষিতে শিবেসেনা শীর্ষ নেতা সঞ্জয় রাওত বলেন, ‘‘ ওঁর রামায়ণ মহাভারত নিয়ে সমস্যা থাকলে নিজের নামটা আগে পরিবর্তন করুক৷’’

সিপিএমের সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্যে বিরক্ত সঞ্জয় আরও বলেন, ‘‘হিন্দুরা হিংস্র! মানেটা কী? রামায়ণ এবং মহাভারতের মূল বিষয় হল খারাপের উপর ভালো-র বিজয়৷ মিথ্যে কে হারিয়ে সত্যের প্রতিষ্ঠা৷ রাম , কৃষ্ণ এবং অর্জুন হলেন সত্যের প্রতীক৷ কাল হয়ত বলবে পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে সীমান্তে যে সব জওয়ানরা লড়ছে তারা হিংস্র৷ যখন কাশ্মীরে আমরা পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদের প্রত্যুত্তর দিই সেটা হিংসা? সিপিএম সাধারণ সম্পদকের আদর্শই হল হিন্দুদের আক্রমণ করে নিজেকে সেকুলার প্রমাণ করা৷’’

শিবসেনা শীর্ষ নেতা রাউত আরও বলেন, ‘‘ওঁর যদি রামায়ণ মহাভারত নিয়ে এতোই অসুবিধে তাহলে নিজের নাম পরিবর্তন করুক৷ এবং ওদের নেতা কানহাইয়া কুমারের নামও পাল্টে ফেলুক৷ কারণ উনিও হিন্দুদের দেবতা এবং মহাভারতের অংশ৷’’

প্রসঙ্গত বৃহস্পতিবার মধ্যপ্রদেশের ভোপালে ওই সভায় তিনি বলেন, ‘রামায়ণ আর মহাভারতের মত ধর্মগ্রন্থে হিংসার ঘটনার কোটি কোটি উদাহরণ আছে।” উনি বলেন, ‘ আরএসএস প্রচারকেরা একদিকে এই গ্রন্থ গুলোর উদাহরণ দেয়, আরেকদিকে তাঁরাই বলে, হিন্দুরা হিংস্র হতে পারেনা। এই কথার মধ্যে কি লজিক আছে যে, এক বিশেষ ধর্মের মানুষেরাই শুধু হিংসা ছড়ায়, আর হিন্দুরা শান্তি!”

সীতারাম ইয়েচুরি আরও বলেন, আরএসএস প্রাইভেট আর্মি বানাচ্ছে। কিন্তু মহাজোট নরেন্দ্র মোদীকে প্রধানমন্ত্রীর আসন থেকে ক্ষমতাচ্যুত করবে। সীতারাম ইয়েচুরি ভোপালের এই সভায় ভোপাল লোকসভা আসনে কংগ্রেসের প্রার্থী দিগ্বিজয় সিং ও উপস্থিত ছিলেন। উনি বলেন, এটা সাধারণ লোকসভা নির্বাচন না, এটা সংবিধান বাঁচানোর লড়াই।