ওয়াশিংটন: নির্বাচনের ফলে হার না মানতে পারলে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে জনগণই একেবারে হোয়াইট হাউস থেকে বের করে দেবে। এমনভাবেই ট্রাম্পের প্রতিদ্বন্দ্বী জো বাইডেনের প্রচার দল হুঁশিয়ারি দিয়েছে। বারবার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ফল মেনে নিতে চাইছেন না বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। তার পরিপ্রেক্ষিতে এমন হুঁশিয়ারি দিয়েছে বাইডেনের প্রচার দল।

বাইডেনের প্রচার দলের মুখপাত্র অ্যান্ড্রূ বেটস জানিয়েছেন, আগেই বলা হয়েছিল আমেরিকার মানুষই হবেন এবারের নির্বাচনের মূল নির্ধারক শক্তি। আর তার ফলে আমেরিকার গণতান্ত্রিক সরকারের ক্ষমতা রয়েছে হোয়াইট হাউস থেকে যে কোনও অবৈধ প্রবেশকারীদের বের করে দেওয়ার।

ইতিমধ্যেই এই নির্বাচনে ট্রাম্পের চেয়ে বাইডেন বেশ কিছুটা এগিয়ে রয়েছেন। বাইডেনের ঝুলিতে রয়েছে ২৫৩টি ইলেক্টোরাল কলেজ অন্যদিকে ট্রাম্পের দখলে রয়েছে ২১৪টি। ক্ষমতায় আসার জন্য দরকার ম্যাজিক ফিগার ২৭০।

এদিকে ভোট গণনার সময় নানা কারচুপির অভিযোগ তুলতে দেখা গিয়েছে ট্রাম্পকে। এই অভিযোগে তিনি আদালতে গিয়েছেন। তবে ভোটের ফল নিয়ে ট্রাম্প যে রকম আচরণ করছেন সেটা খোদ তার নিজের দল‌ ভালোভাবে নিচ্ছে না।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।