জয়পুর: সুপারহিট আইপিএলের তৃতীয় দিনেই বিতর্ক৷ অশ্বিনের জোস বাটলারকে রান আউট করা কি ক্রিকেটের আইন বর্হিভূত, সেই সঙ্গে এমন আউট কি ক্রিকেটের স্পিরিটের বিপক্ষে? নানা প্রশ্নে তোলপাড় ক্রিকেটমহল৷ দ্বিধাবিভক্ত প্রাক্তনিরাও৷

শেন ওয়ার্নের মতো অজি কিংবদন্তি অশ্বিনের রান আউট(মানকাড) করাকে অক্রিকেটীয় ব্যখা করেছেন৷ ক্রিকেট ধারাভাষ্যকার হর্ষ ভোগলের সঙ্গে টুইট যুদ্ধে ওয়ার্ন লিখেছেন, ‘আইপিএলে এমন অক্রিকেটীয় আচরণ এই প্রথম৷ বিষয়টা বোর্ডের দৃষ্টিতে আনা উচিত৷ ভবিষ্যতে আইপিএলে ক্রিকেটের স্পোর্টিং স্পিরিট বিরোধী এমন আউট রুখতে বোর্ডের কড়া সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় এসেছে৷’

ওয়ার্নের মতো প্রাক্তনরা জোসকে আউট করার বিষয়টি নক্কারজনক বলে মন্তব্য করলেও অনেকেই অশ্বিনের সমর্থনে সোশ্যাল মিডিয়ায় কি বোর্ড ধরেছেন৷ কম বেশি সকলেই একমত, ক্রিকেটের রুলবুক পরিবর্তনের পর নিয়ম বলছে, চাইলে নন স্ট্রাইকিং এন্ডে থাকা ব্যাটসম্যানকে সতর্ক না করেই এমন আউট করতে পারেন বোলার৷

সেকারণেই অশ্বিনের সমর্থনে হর্ষ ভোগলের মতো ক্রিকেট লেখিয়েরা সোশ্যাল মিডিয়ায় শব্দ খরচ করে লিখেছেন, ‘অশ্বিনের আচরণ একেবারেই অক্রিকেটীয় নয়৷ সেক্ষেত্রে ব্যাটসম্যান ক্রিজ ছাড়লে কিপারকেও সতর্ক করার নিয়ম তৈরি করতে হয়!’ হর্ষের এই মন্তব্যের  পরই তাঁকে পাল্টা পক্ষপাতী বলে তোগ দাগেন ওয়ার্ন৷

টুইটে ওয়ার্ন হর্ষকে প্রশ্ন করে লিখেছেন, ‘অশ্বিনকে যারা সমর্থন করছেন, কোহলিকে স্টোকস মানকাডেড করলে তারা কী বলতেন?’

আগে নন-স্টাইকার প্রান্তের ব্যাটসম্যানকে এভাবে রানআউট করতে হলে একবার সতর্ক করার বাধ্যতামূলক ছিল৷ পরে আইসিসি’র অনুমোদিত এমসিসির বদলে যাওয়া নিয়ম অনুসারে মানকাডিংয়ের জন্য এখন আর ব্যাটসম্যানকে সতর্ক করার বাধ্যবাধকতা নেই বোলারের৷ যে কারণে অশ্বিন ৬৯ রানে ব্যাট করা বাটলারকে বোলিং প্রান্তে রানআউট করার আগে সতর্ক করার সৌজন্য দেখাননি বা প্রয়োজন বোধ করেননি৷

বাটলার আউট হওয়ার পর নাটকীয়ভাবে ম্যাচর পটপরিবর্তন হয়৷ রাজস্থান হাতের মুঠোয় থাকা ম্যাচ হেরে বসে পঞ্জাবের কাছে৷ ম্যাচের শেষে এমন ঘটনার জন্য বিন্দুমাত্র অনুশোচনা দেখাননি অশ্বিন৷ যদিও মাঠের মাঝেই  বাটলারের সঙ্গে তিনি উত্তপ্ত কথার লড়াইয়ে জড়িয়েছিলেন৷