ভোপাল: মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন দুই মুখ্যমন্ত্রীকে বেনজির আক্রমণ বিজেপি নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়ার। ‘‘যদি কেউ রাজ্যের মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে থাকেন, তবে তাঁরা হলেন কমল নাথ এবং দিগ্বিজয় সিং।’’ শনিবার মধ্যপ্রদেশে গিয়ে এমনই অভিযোগ তুলেছেন বিজেপি নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া।

হাত ছেড়ে পদ্মে যোগ দিয়েছেন একদা কংগ্রেসের তরুণ নেতা জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। গেরুয়া শিবিরে যোগ দিয়েই মিলেছে ‘পুরস্কার’। বিজেপি তাঁকে রাজ্যসভার সাংসদ করেছে।

মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথের সঙ্গে মতানৈতিক্যের জেরে এক সময় দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা করেছিলেন জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া। প্রকাশ্যেই কমল নাথ সরকারের বিরুদ্ধে বিষোদগার করতে থাকেন তিনি। তরুণ নেতাকে বোঝাতে একের পর এক বিশ্বস্ত ‘সেনাপতি’কে মাঠে নামিয়েছিলেন সোনিয়া-রাহুলরা।

তাতেও কাজ হয়নি। পাকাপাকিভাবে কংগ্রেসের সঙ্গ ছেড়ে বিজেপিতে নাম লেখান জ্যোতিরাদিত্য। পদ্ম শিবিরে যাওয়া ইস্তক মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস নেতৃত্বকে একের পর এক আক্রমণ করে চলেছেন বিজেপির রাজ্যসভার এই সাংসদ।

শনিবার বর্ষীয়ান দুই কংগ্রেস নেতাকে আক্রমণ করে জ্যোতিরাদিত্য বলেন, ‘‘ যদি কেউ রাজ্যের মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে থাকেন, তবে তাঁরা হলেন কমল নাথ এবং দিগ্বিজয় সিং। ১৫ মাস রাজ্যের ক্ষমতায় থেকেও তাঁরা কৃষকদের ঋণ মকুব করেননি।’’

জ্যোতিরাদিত্য দল ছাড়ার পরপরই মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকারের টালমাটাল অবস্থা তৈরি হয়। শেষমেশ সংখ্যার ‘খেলা’য় হার মানেন কমল নাথ। মুখ্যমন্ত্রীর কুর্সি ছাড়তে হয় তাঁকে। সেই সঙ্গে মধ্যপ্রদেশের কংগ্রেস সরকারের পতন হয়।

রাজ্যের ক্ষমতা কংগ্রেসের হাত থেকে কারযত ছিনিয়ে নেয় বিজেপি। মুখ্যমন্ত্রী হন শিবরাজ সিং চৌহান। কমল নাথের সরকার নিজেরা কাজ না করে বর্তমান রাজ্য সরকারের কাঁধে হাজার-হাজার কোটি টাকার দেনা চাপিয়ে গিয়েছেন বলেও অভিযোগ জ্যোতিরাদিত্যের।

শনিবার এপ্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘ক্ষমতায় থাকাকালীন কৃষকদের ঋণ মকুব না করে উল্টে শিবরাজ সিং চৌহানের সরকারের কাঁধে কমল নাথ, দিগ্বিজয় সিংরা ৮ হাজার কোটি টাকার দেনার বোঝা চাপিয়ে গিয়েছেন।’’

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।