মুম্বই: আইসিআইসিআই ব্যাংকের সিইও চন্দা কোছারকে অনিদিষ্টকালের জন্য ছুটিতে যেতে বলল তার সংস্থা৷ ব্যাংকের বোর্ড এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে একটি সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যম প্রতিবেদনে জানাচ্ছে৷ প্রায় এক দশক ধরে তিনি রয়েছে তবে সম্প্রতি তাঁর বিরুদ্ধে স্বাধীন নিরপেক্ষ তদন্তের কথা বলেছে সংস্থা৷

এদিকে এক্সচেঞ্জের কাছে করা ফাইলে আইসিআইসিআই ব্যাংক জানিয়েছে ব্যাংকের বোর্ড চন্দা কোছারকে কোনওরকম ছুটিতে যেতে বলেনি৷ তিনি বার্ষিক ছুটি নিয়েছেন যেটা বহুদিন আগেই প্ল্যান করা ছিল৷

সূ্ত্রের খবর ব্যাংকের বোর্ডে সাত স্বাধীন ডিরেক্টরের সংখ্যাগরিষ্ঠই সিদ্ধান্ত নেয় তাকে ছুটিতে পাঠানোর ব্যাপারে৷ চন্দা কোছারের বিরুদ্ধে যে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে আইসিআইসিআই ব্যাংক তা সম্ভবত সুপ্রিম কোর্টের একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতিকে দিয়ে করান হবে এবং তা পরের সপ্তাহে শুরু হবে এবং দুমাসের মধ্যে শেষ করা হবে। প্রসঙ্গত ছয়দিন আগেই বাজার নিয়ন্ত্রক সেবি নোটিশ পাঠায় আইসিআইসিআই ব্যাংকের সিইও এবং এমডি চন্দা কোছারের কাছে ৷ ভিডিওকন গোষ্ঠী এবং নিউপাওয়ারের সঙ্গে তার স্বামী দীপক কোছারের স্বার্থ কতটা জড়িত তা জানতে চাওয়া হয়েছে৷

প্রসঙ্গত অভিযোগ উঠেছে ভিডিওকনকে ৩২৫০ কোটি টাকার ঋণ অনুমোদন করে আইসিআইসিআই ব্যাংক যাতে স্বার্থগত সংঘাত রয়েছে৷ ২০১২ সালে ২০টি ব্যাংকের কনসোট্রিয়াম যে ৪০,০০০ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছিল এটা তারই অংশ৷ অভিযোগ ২০১০ সালে বেণুগোপাল ধূত ৬৪ কোটি টাকা দিয়ে পুরোপুরি মালিকানাধীন নিউপাওয়ায় রিনিওবেলস প্রাইভেট লিমিটেড নামে সংস্থা গড়েন দীপক কোছার এবং তাঁর দুই আত্মীয়কে সঙ্গে নিয়ে৷ তাছাড়া ওই ঋণ নেওয়ার ছয় মাসের মধ্যেই ৯ লক্ষ টাকায় বেণু গোপাল ধূত তার মালিকানা হস্তান্তরিত করেন একটি ট্রাস্টের কাছে যার মালিক দীপক কোছার৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও