দুবাই: টি-২০ বিশ্বকাপ আয়োজনের পর্যালোচনা করতে বৃহস্পতিবার বৈঠকে বসছে আইসিসি৷ কোভিড-১৯ অতিমহামারীর কারণে সংশয়ে চলতি বছরে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে হতে চলা টি-২০ বিশ্বকাপের আসর৷ সূচি অনুযায়ী পুরুষদের টি-২০ বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার কথা ১৮ অক্টোবর গিলংয়ে৷

করোনা ভাইরাসের জন্য সারা বিশ্ব এখন স্বাস্থ্য সংকটে ভুগছে৷ থমকে গিয়েছে সারা বিশ্ব৷ সতর্কতা হিসেবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বাইশ গজের লড়াই৷ বিশ্বের সব প্রান্তেই বন্ধ রাখা হয়েছে ক্রিকেট ম্যাচ৷ শুধু ক্রিকেট নয়, বন্ধ হয়ে গিয়েছে অনান্য খেলাধূলোও৷

সিইসি অর্থাৎ চিফ একজিকিউটিভ কমিটির বৈঠকের পর আইসিসি-র তরফে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছিল, ‘আইসিসি পুরুষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২০-সহ সমস্ত বিশ্বব্যাপী ইভেন্টের জন্য ক্রমাগত কন্টিনজেন্সি পরিকল্পনা করবে৷’

করোনা মহামারী বেশ কয়েকটি দ্বি-পক্ষীয় সিরিজকে বন্ধ করে দিয়েছে, যা বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপকে প্রভাবিত করেছে৷ পাশাপাশি ভারতীয় ক্রিকেট কন্ট্রোল বোর্ডের মিলিয়ন ডলার টুর্নামেন্ট আইপিএলেও অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করে দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ায় কনফারেন্স মিটিংয়ে আইসিসি তার সদস্যদের কাছ থেকে জানতে চাইবে যে, কোন পরিস্থিতিতে এবং ঠিক কখন ক্রিকেট আবার শুরু করা যেতে পারে৷ আইসিসি জানিয়েছে, ‘এই বৈঠকের উদেশ্য এই সময়ে সদস্যদের অগ্রাধিকার সম্পর্কে পুরোপুরি বোঝা এবং প্রতিটি অঞ্চলে সরকারি পরামর্শের ভিত্তিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট পুনরায় শুরু করার জন্য প্রয়োজনীয় বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা করা৷’

গভর্নিং বডির চিফ একজিকিউটিভ মনু সাওয়নি আরও বলেন, ‘আমাদের উচিত পরস্পরের অভিজ্ঞতা শেয়ার করা এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেট পুনরায় শুরু করতে কী লাগবে তা নিয়ে গভীর ধারণা তৈরি করাষ শুরু করতে হবে। তবে প্রতিটি দেশ করোনা মোকাবিলায় যে সতর্কতা অবলম্বন করেছে আমাদের তা সম্মান করতে হবে৷’

পুরুষদের টি-২০ বিশ্বকাপ-সহ আইসিসি ইভেন্টের বিষয়ে আমরা অস্ট্রেলিয়া সরকারের বিশেষজ্ঞ ও কর্তৃপক্ষের পরামর্শ গ্রহণ করব। সুতরাং টুর্নামেন্টের ভাগ্য নিয়ে উপযুক্ত সময়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে৷ সুতরাং ২০১৩ টুর্নামেন্ট ক্যালেন্ডার নিয়েও পর্যালোচনা করা হবে এই বৈঠকে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।