ক্রাইস্টচার্চ: পুরুষদের বিশ্বকাপ ক্রিকেটের আবহেই ঘোষণা হয়ে গেল মহিলাদের আগামী বিশ্বকাপ ক্রিকেটের দিনক্ষণ। নিউজিল্যান্ডের মাটিতে বসতে চলেছে মহিলা বিশ্বকাপের দ্বাদশ সংস্করণ। একক আয়োজক হিসেবে কিউয়ির দেশে আগামী মহিলা বিশ্বকাপের পর্দা উঠবে ২০ জানুয়ারি ২০২১। সেমিফাইনাল-ফাইনাল সহ ৩১ ম্যাচের মেগা ক্রিকেট আসরের যবনিকা পতন হবে ২০ ফেব্রুয়ারি।

এই নিয়ে চতুর্থবার বিশ্বক্রিকেটের মেগা আসর বসতে চলেছে ওশিয়ানিয়ার এই দেশে। এর আগে ১৯৯২ ও ২০১৫ অস্টেলিয়ার সঙ্গে যুগ্ম আয়োজক হিসেবে পুরুষ বিশ্বকাপ এবং ২০০০ সালে একক আয়োজক হিসেবে মহিলা বিশ্বকাপের আয়োজন করে নিউজিল্যান্ড। মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে দ্বাদশ মহিলা ক্রিকেট বিশ্বকাপের দিনক্ষণ ঘোষণা করা হয়। আয়োজক হিসেবে সরাসরি বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে নিউজিল্যান্ড। এছাড়া আইসিসি মহিলা চ্যাম্পিয়নশিপের নিরীখে প্রথম ৪টি দেশ বিশ্বকাপে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে।

আরও পড়ুন: নিরাপত্তার বেষ্টনী টপকে ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে হানা ক্রিকেট অনুরাগীর

এই চারটি দেশ হল অস্ট্রেলিয়া (২২), ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড (২২), ভারত এবং দক্ষিণ আফ্রিকা। যোগ্যতা নির্ণায়ক পর্বের মধ্যে দিয়ে বিশ্বকাপের বাকি তিন দেশ নির্ধারিত হবে। আফ্রিকা, আমেরিকা, এশিয়া, ইস্ট এশিয়া প্যাশিফিক এবং ইউরোপের সেরা দেশগুলির সঙ্গে যোগ্যতা নির্ণায়ক পর্বে অংশগ্রহণ করবে বাংলাদেশ ও আয়ারল্যান্ড। বিশ্বকাপের চেয়ারপার্সন ও চিফ এক্সিকিউটিভ হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট বোর্ডের ডিরেক্টর লিজ ডসনকে।

আরও পড়ুন: আফগানিস্তানকে ১৫০ রানে হারিয়ে মগডালে ইংল্যান্ড

এছাড়া বিশ্বকাপের জন্য গঠিত বোর্ড বা কমিটিতে ডসনের নেতৃত্বে থাকছেন ওয়ার্ল্ড মাস্টার্স গেমসের চিফ এক্সিকিউটিভ জেনাহ উটেন, ওয়েস্টপ্যাক স্টেডিয়ামের ট্রাস্ট চিফ এক্সিকিউটিভ শেন হারমন, নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের চেয়ারম্যান গ্রেগ বার্কলে ও নিউজিল্যান্ড ক্রিকেটের চিফ এক্সিকিউটিভ ডেভিড হোয়াইট। এর আগে ২০১১ রাগবি বিশ্বকাপে মার্কেটিং এবং কমিউনিকেশন জেনারেল ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেছেন হারমন। বার্কলে ও হোয়াইট ২০১৫ পুরুষ ক্রিকেট বিশ্বকাপ ও ২০১৮ অনুর্ধ্ব-১৮ ক্রিকেট বিশ্বকাপে গুরুত্বপূর্ণ পদ সামলেছেন।