লন্ডন: কালবিলম্ব না করে জিম্বাবোয়ে ক্রিকেটকে তাঁদের সদস্যপদ থেকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করল বিশ্বক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা। স্বচ্ছ ও গণতান্ত্রিক উপায়ে নির্বাচনের মাধ্যমে সরকারী হস্তক্ষেপ মুক্ত ক্রিকেট প্রশাসন গঠনে ব্যর্থ হয়েছে সেদেশের ক্রিকেট বোর্ড। তাই বৃহস্পতিবার লন্ডনে অনুষ্ঠিত বার্ষিক সভায় জিম্বাবোয়ে ক্রিকেটকে বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করল আইসিসি।

আইসিসি’র তরফ থেকে সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া এক প্রেস বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ‘আইসিসি’র পূর্ন সদস্য হিসেবে জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট তাঁদের সঠিক দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ হয়েছে। একইসঙ্গে গণতান্ত্রিক উপায়ে নির্বাচনের মাধ্যমে সরকারী হস্তক্ষেপ মুক্ত স্বচ্ছ ক্রিকেট বোর্ড গঠনে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে।’ স্বাভাবিকভাবেই আইসিসি’র সদস্যপদ খারিজ হওয়ায় ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার তরফ থেকে জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট বোর্ড কোনও আর্থিক সাহায্য তো পাবেই না এমনকি আইসিসি অনুষ্ঠিত কোনও ইভেন্টে অংশগ্রহণও করতে পারবে না জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট দল।

আরও পড়ুন: কেকেআর নয়, সানরাইজার্সের প্রধান কোচ হলেন বিশ্বচ্যাম্পয়িন বেলিস

আইসিসি চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহরের কথায়, ‘এই সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে আমরা কাউকে হালকাভাবে নিইনি। কিন্তু ক্রিকেটকে আমাদের অবশ্যই রাজনীতিমুক্ত করতে হবে।’ আইসিসি চেয়ারম্যানের আরও সংযোজন, ‘জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট আইসিসি’র সংবিধানের এক গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম লঙ্ঘন করেছে এবং আমরা বিষয়টি কোনওভাবেই এড়িয়ে যেতে পারি না। আইসিসি’র সংবিধানের সমস্ত নিয়ম মেনেই সেদেশে ক্রিকেট চলুক, এমনটাই আমরা চাই।’

আরও পড়ুন: কোচের পর ক্যাপ্টেন কোহলির ডানা ছাঁটল বোর্ড

আইসিসি’র গৃহীত এই সিদ্ধান্তের ফলে আগামী অক্টোবরে টি২০ বিশ্বকাপের যোগ্যতা নির্ণায়ক পর্বে অংশগ্রহণের বিষয়েও জিম্বাবোয়ে ক্রিকেট বিশ বাঁও জলে। শুধুমাত্র জিম্বাবোয়ে নয়, ক্রোয়েশিয়া ও জাম্বিয়া ক্রিকেটকেও আইসিসি সদস্যপদ ধারণের প্রয়োজনীয় শর্তাবলী পূরণ না করায় বরখাস্ত করেছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা। পাশাপাশি আসন্ন আশেজ থেকে শুরু হতে চলা টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে ওভার রেট ইস্যুতে গৃহীত নয়া সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছে আইসিসি।

এবার থেকে ধারাবাহিক ভাবে ওভার রেট ইস্যুতে দলনায়ককে সাসপেন্ড করার রাস্তা থেকে সরে আসল বিশ্বক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা। আইসিসি’র কথায় দলের প্রত্যেক ক্রিকেটার ওভার রেট ইস্যুতে সমানভাবে দায়ী। তাই স্লো ওভার-রেটের কারণে অধিনায়কের মতই সমান জরিমানা করা হবে দলের বাকি ক্রিকেটারদেরও। একইসঙ্গে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শুরু থেকে স্লো ওভার-রেটের কারণে প্রতি ওভারপিছু যে কোনও দলের দু’টি করে কম্পিটিশন পয়েন্ট কেটে নেবে বিশ্বক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থা।