নয়াদিল্লি: ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম অনুযায়ী জুনে নির্ধারিত ছিল ভারতীয় দলের শ্রীলঙ্কা সফর। কিন্তু করোনা আবহের মধ্যে যথাসময়ে কোহলিদের দ্বীপরাষ্ট্রে সফর স্থগিত হওয়ার চিত্রটা পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল অনেক আগেই। আর সেই কারণে পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে আগামী অগাস্টে স্থগিত হয়ে যাওয়া সিরিজ আয়োজনের জন্য অনেকটাই এগিয়েছে দু’দেশের ক্রিকেট বোর্ড। বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে এমন খবর। কিন্তু জুনে পূর্ব নির্ধারিত সিরিজ স্থগিতের কথা এতদিন অফিসিয়ালি ঘোষণা করা হয়নি বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ামক সংস্থার পক্ষ থেকে।

দেরিতে হলেও জুনে নির্ধারিত ভারতের শ্রীলঙ্কা সফরে অফিসিয়ালি স্থগিতাদেশ জারি করল আইসিসি। পূর্ব নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী জুনের শেষদিকে শ্রীলঙ্কার মাটিতে ৩টি টি২০ এবং সমসংখ্যক ওয়ান-ডে ম্যাচ খেলতে উড়ে যাওয়ার কথা ছিল কোহলি অ্যান্ড কোম্পানির। কিন্তু সেই সফরে স্থগিতাদেশ জারি করে আইসিসি জানাল, ‘চলতি মাসের শেষের দিকে ভারতের শ্রীলঙ্কায় খেলতে যাওয়ার যে সূচি নির্ধারিত ছিল অতিমারি করোনার জেরে সেই সিরিজ আপাতত স্থগিত করা হল।’ শ্রীলঙ্কার তরফ থেকেও এমন নির্দেশিকার কথা নিশ্চিত করা হয়েছে।

দ্বীপরাষ্ট্রের ক্রিকেট বোর্ডের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, ‘বিসিসিআই’য়ের তরফ থেকে জানানো শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটকে জানানো হয়েছে অতিমারি কোভিড১৯-এর জেরে পারিপার্শ্বিক যে অভূতপূর্ব পরিস্থিতি, তাতে ভারত-শ্রীলঙ্কা টি২০ এবং ওয়ান-ডে সিরিজ আয়োজন হওয়া সম্ভব নয়।’ আর এমন ভবিতব্যের জন্য প্রস্তুত ছিলো দুই দেশই। কারণ, করোনার প্রকোপ কিছুটা কমায় শ্রীলঙ্কান ক্রিকেটাররা দিনকয়েক আগে প্রস্তুতি শুরু করার সুযোগ পেলেও কোহলি-রোহিতরা এখনও গৃহবন্দিই রয়েছেন। লকডাউন শিথিল হলেও ভারতে মৃত্যুমিছিল চলছেই। দেশে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা ৮ হাজার পেরিয়ে গিয়েছে।

বিসিসিআই কোষাধ্যক্ষ এব্যাপারে রয়টার্সকে জানিয়েছেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে কোনও দেশে গিয়ে সিরিজ খেলা একেবারেই অসম্ভব। কখনোই নিরাপদ নয় বিষয়টি। অদূর ভবিষ্যতে সুযোগের অপেক্ষায় রয়েছি। আমরা সিরিজটা খেলতে যাওয়ার চেষ্টা করব।’

করোনা পরবর্তী সময় ওয়েস্ট ইন্ডিজের ইংল্যান্ড সফর দিয়ে বাইশ গজে ফিরছে ক্রিকেট। মঙ্গলবারই সিরিজ খেলতে ইংল্যান্ডের মাটিতে পা দিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল। যা স্বাভাবিকভাবেই ভারতের বিরুদ্ধে সিরিজ আয়োজনে আশার আলো দেখিয়েছে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ডকে। সূত্রের খবর দ্বীপরাষ্ট্রও জুনের পরিবর্তে আগামী অগাস্টে কোহলিদের আপ্যায়ণ করার জন্য দেশের ক্রীড়ামন্ত্রকের অনুমোদনের অপেক্ষায় রয়েছে।

দ্বীপরাষ্ট্রের ক্রিকেট বোর্ডের এক আধিকারিক স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে জানিয়ছেন, ‘আমরা স্টেডিয়ামের ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ পূর্ণ করে খেলা চালু করতে চাই। তাতে দর্শকদের একে অপরের মধ্যে এক মিটার দূরত্ব বজায় থাকবে। যদিও চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন স্বাস্থ্য আধিকারিকেরাই। আমরা তাদের নির্দেশিকা মেনেই এগোব।’ প্রাথমিক স্তরে বিসিসিআই’য়ের তরফেও ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া মিলেছে বলে দাবি করেছে সূত্রটি।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ