নয়াদিল্লি: জম্মু ও পঞ্জাব লাগোয়া পাকিস্তানের সীমানায় জোর মহড়া ভারতীয় বায়ুসেনার৷ বৃহস্পতিবার রাতে বায়ুসেনার ফাইটার জেট, ফ্রন্টলাইন এয়ারক্রাফট মহড়া দেয় পাক সীমান্ত লাগোয়া পঞ্জাব ও জম্মুর গ্রামগুলির ওপর দিয়ে৷

এছাড়া মহড়া চলে অমৃতসরেও৷ পাক বায়ুসেনার বিমান ভারতের আকাশের ঢুকে পড়লে কীভাবে তার মোকাবিলা চলবে, তার খসড়া তৈরি করতে এই মহড়া বলে সূত্রের খবর৷ এছাড়া কূটনৈতিক মহলের মত, এই বিমান মহড়া পাকিস্তানকে চাপে ফেলার কৌশলও হতে পারে৷

ভারতীয় বায়ুসেনা সূত্রে খবর জইশ ই মহম্মদের ঘাঁটিতে হামলার পর প্রত্যাঘাত আসতে পারে৷ তাই যে কোনও পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে প্রস্তুত বায়ুসেনা৷ এই মহড়া তারই জের৷ ২৬শে ফেব্রুয়ারি খাইবার পাখতুনখোওয়ার বালাকোট এলাকায় জইশের ঘাঁটি লক্ষ্য করে জোরদার হামলা চালায় ভারত৷

দিন কয়েক আগেই পাকিস্তান বায়ুসেনার দুটি ফাইটার জেট পাক অধিকৃত কাশ্মীরের আকাশসীমার ১০ কিলোমিটার ভিতর ঢোকে৷ পুঞ্চ সেক্টর লাগোয়া নিয়ন্ত্রণ রেখা ধরে তাঁরা ঘোরাফেরা করে পাকিস্তানের আকাশসীমায়৷ ভারতীয় নিয়ন্ত্রণরেখার কাছাকাছি আসতেই রাডারে তাদের সন্দেহজনক গতিবিধি লক্ষ্য করা যায়৷ ভারতীয় বায়ুসেনাও তৈরি হয়ে যায় উত্তর দেওয়ার জন্য৷ তবে পাক বিমান ফিরে যাওয়ায় কোনও সংঘর্ষ তৈরি হয়নি৷

উল্লেখ্য, বালাকোটের এয়ার স্ট্রাইকের কয়েক ঘন্টা পরে পাকিস্তানের বিদেশ মন্ত্রী এয়ারস্ট্রাইকের তথ্য খারিজ করে দেন৷ তবে পাক সংবাদমাধ্যম জানায়, ভারতীয় বিমানগুলি ১৬০ সেকেন্ডে পজিশন নেয় এবং এবং এয়ারস্ট্রাইক করে ফিরে আসে৷

১৪ ফেব্রুয়ারি কাশ্মীরের পুলওয়ামারে জইশের আত্মঘাতী জঙ্গি হামলা করে৷ এই ঘটনায় পুলওয়ামায় সিআরপিএফের ৪০ জন জওয়ান শহিদ হযন৷ তার পর গত ২৬ ফেব্রুয়ারি ভারতীয় বায়ুসেনা জইশের বালাকোটের ক্যাম্পে এয়ারস্ট্রাইক করে৷