মুম্বই: বিহার নির্বাচনে শাসক এনডিএ-কে এবার জোর টক্কর দিচ্ছে আরজেডি, কংগ্রেস, তিন বাম দলের মহাজোট। প্রচারে ইতিমধ্যেই নজর কেড়েছেন লালুপ্রসাদ যাদবের পুত্র তেজস্বী। বিহার-ভোটে লালু-পুত্র কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলে দিয়েছেন নীতিশ কুমার, সুশীল মোদীদের। তেজস্বীকে নিয়ে আশাবাদী শিবসেনাও। দলের মুখপাত্র সঞ্জয় রাউত বলেন, ‘‘বিহারে আগামিদিনে তেজস্বী যাদব মুখ্যমন্ত্রী হলে আমি অন্তত অবাক হব না।’’

করোনাকালে বিহার ভোট এবার ৩ দফায়। ইতিমধ্যেই গত ২৮ অক্টোবর বিহারের ৭১ আসনে প্রথম দফার ভোটগ্রহণ শে। হয়েছে। আগামী ৩ নভেম্বর দ্বিতীয় দফায় ৯৪টি আসনে নির্বাচন হবে। তৃতীয় ও শেষ দফায় ৭৮টি আসনে ভোটগ্রহণ হবে। আগামী ১০ নভেম্বর বিহারে বিধানসভা ভোটের ফল ঘোষণা করা হবে। বিহারের মোট ২৪৩টি আসনে ভোটগ্রহণ হবে।

বিহার ভোটের প্রচার পর্বের শুরু থেকেই শাসক এনডিএ-কে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলে দিয়েছে আরজেডি। দলের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী লালু-পুত্র তেজস্বী যাদব। নির্বাচনী প্রচারে গোটা বিহার চষে ফেলছেন তিনি। সাম্প্রতিক একাধিক সমস্যা ভোটারদের সামনে তুলে ধরে ভোট-যুদ্ধ জমিয়ে দিয়েছেন তেজস্বী যাদব।

তেজস্বীর এই তৎপরতায় খুশি শিবসেনা। দলের মুখপাত্র সঞ্জয় রাউত বলেন, ‘‘কোনও সমর্থন ছাড়াই এক যুবক যাঁর পরিবারের সদস্যরা কারাগারে রয়েছে এবং তাঁর পিছনে সিবিআই এবং আইটি বিভাগ রয়েছে। তিনি বিহারের মতো রাজ্যে সবাইকে চ্যালেঞ্জ দিচ্ছেন। আগামীকাল তেজস্বী যাদব বিহারের মুখ্যমন্ত্রী হয়ে গেলে আমি অবাক হব না।’’

বিহারের নির্বাচনী প্রচারে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক মেজাজ বজায় রেখেছেন তেজস্বী যাদব। রাজ্যের কর্মসংস্থান, দারিদ্র্য দূরীকরণ-সহ একাধিক ইস্যুতে নীতিশকে ‘ব্যর্থ’ মুখ্যমন্ত্রীর তকমা দিয়েছেন লালু-পুত্র। এছাড়াও চমক ছাড়াই বাস্তববাদী হয়েই ভোট-যুদ্ধে নেমেছেন তেজস্বী।

দলের নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশ করে তাঁর বক্তব্য ছিল, ‘‘চাইলেই ১ কোটি চাকরির প্রতিশ্রুতি দিতে পারতাম, কিন্তু জানি তা সম্ভব নয়। ভোটে জিততে এমন কোনও প্রতিশ্রুতি দেব না, যা পূরণ অসম্ভব’’। লালু-পুত্রের এই পরিণত মানসিকতা নজর কেড়েছে তাবড় রাজনীতিবিদদের।

দেশে এবং বিদেশের একাধিক সংবাদমাধ্যমে টানা দু'দশক ধরে কাজ করেছেন । বাংলাদেশ থেকে মুখোমুখি নবনীতা চৌধুরী I