স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: নাগরিকত্ব সংশোধিত আইনের প্রতিবাদে ‘জঙ্গি’ আন্দোলন হয়েছে মালদহ ও মুর্শিদাবাদ জেলায়। যার ফলে এখন গোটা দেশের সঙ্গে রেল যোগাযোগ কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে গিয়েছে উত্তরবঙ্গের। এবার এই দুই জেলার ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করার ইচ্ছা প্রকাশ করলেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।

বুধবার রাজভবনে মুখ্যসচিব রাজীব সিনহা ও রাজ্য পুলিশের ডিজি বীরেন্দ্র সঙ্গে সাম্প্রতিক পরস্থিতি পর্যালোচনা করার পর সাংবাদিক বৈঠক করেন রাজ্যপাল। এরপর তিনি বলেন, “মুর্শিদাবাদ ও মালদহের ঘটনায় আমি ব্যথিত৷ দুই ২৪ পরগনা জেলায় ক্ষতি হয়েছে৷ রাজ্যের মুখ্যসচিব তথ্য দিয়েছেন৷ আমি ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে যেতে চাই৷ প্রশাসন অনুমতি দিলে আমি সেখানে গিয়ে দেখতে চাই, ঠিক কী পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে৷ রাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা করেই যাব। আজ প্রশাসনের দুই কর্তাকে একথা জানিয়েছি।যখন ওরা মনে করবেন পরিস্থিতি রাজ্যপালের যাওয়ার উপযুক্ত তখনই যাব।”

রাজ্যে শান্তি ফেরাতে সবরকম বিরোধ দূরে রেখে প্রশাসনের সঙ্গে একযোগে কাজ করারও বার্তা দিয়েছেন রাজ্যপাল। এদিন দুই শীর্ষ কর্তার সঙ্গে বৈঠক হলেও রাজ্যপাল চাইছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে কথা বলতে৷ এদিন তিনি বলেন, “আমি পিছনে ফিরে তাকাতে চাইনা। সামনের দিকে তাকিয়ে কিভাবে সব দ্রুত ঠিক করা যায় সেটাই এখন লক্ষ্য। আমি আশাবাদী মুখ্যমন্ত্রী আমার সঙ্গে আলোচনা করবেন, এবং আলোচনা হবে রাজ্যের জন্য ইতিবাচক।”

উল্লেখ্য, সোমবার দুই শীর্ষ কর্তাকে রাজভবনে তলব করেছিলেন রাজ্যপাল। কিন্তু মুখ্যসচিব বা ডিজিপি সেই ডাকে সাড়া দেননি। তাতে ক্ষুব্ধ হয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে তলব করেন রাজ্যপাল৷

এনআরসি ও নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় রাজ্যে লাগাতাড় আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই আইন অসংবিধানিক বলেও দাবি করেছেন তিনি। এব্যাপারে রাজ্যপালের বক্তব্য, রাজনীতিকরা কী করবেন সেটা তাঁদের ব্যাপার। এ নিয়ে আমার কিছু বলার নেই। তিনি বলেন, “না জেনে কিছু মানুষ ভুল কাজ করছে। অনেকে ভুল শেখাচ্ছেও। আশা করি প্রশাসন যথাযথ ব্যবস্থা করবে।”