বেঙ্গালুরু: আইএসএল এবং আই লিগে সম্প্রতি বিদেশি সংখ্যা কমিয়ে আনতে উদ্যোগী হয়েছে ভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন। কিন্তু এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের রুলবুক মেনে ভারতীয় ফুটবলে চার বিদেশি (৩+১) কার্যকর করার বিষয়ে সায় নেই অনেক কোচের। কোচেদের মতে লিগে বিদেশি সংখ্যা হ্রাস ফুটবলের মান কমিয়ে আনবে একইসঙ্গে ভারতীয় ফুটবলারদের অগ্রগতি ব্যাহত হবে।

টেকনিক্যাল কমিটির প্রস্তাবে সাড়া দিয়ে ২০২০-২১ আই লিগ মরশুম থেকেই ছয় থেকে কমিয়ে চার বিদেশি নিয়ম কার্যকর করেছে ফেডারেশন। আইএসএলে ২০২১-২২ মরশুম থেকে এই নিয়ম কার্যকর হওয়ার কথা। যদিও এমন সময় দাঁড়িয়ে বেঙ্গালুরু এফসি কোচ কার্লোস কুয়াদ্রাত মনে করছেন চার বিদেশি নিয়ম কার্যকর করে ভারতীয় ফুটবলে আখেরে কোনও লাভ হবে না। এতে ভারতীয় ফুটবলারদের উপরেই অযথা বেশি চাপ পড়বে বলে মনে করেন সুনীলদের কোচ।

আই লিগে চেন্নাই সিটি এফসি কোচ আকবর নওয়াজের সঙ্গে লাইভ চ্যাট সেশনে স্প্যানিশ কোচ বলেন, ‘ভারতীয় ফুটবলে বিদেশি কোটা কমিয়ে আনলে সেটা আখেরে ভারতীয় ফুটবলেরই ক্ষতি। কোয়ালিটি ফুটবল পরিবেশনের ক্ষেত্রে ভারতীয় ফুটবলারদের উপর অহেতুক চাপ পড়ে যাবে। ওরা নিঃসন্দেহে প্রতিভাবান কিন্তু এতটা চাপ নেওয়ার ক্ষমতা ওদের মধ্যে নেই।’ উদাহরণ হিসেবে কুয়াদ্রাত বলেন, ‘মাঝমাঠে এরিক পারতালু, দিমাস দেলগাদো কিংবা জুয়ানান পাশে থাকলে বছর উনিশের মিডফিল্ডার সুরেশ সিং ওয়াংজাম অনেক চাপহীন ফুটবল উপহার দিতে পারে। আইএসএল একটা ভালো মানের ফুটবল উপহার দেয় অনুরাগীদের। যার পিছনে সিংহভাগ কৃতিত্ব বিদেশিদের।’

পক্ষান্তরে বিএফসি সিইও পার্থ জিন্দাল চার বিদেশি’র নিয়মকে (৩+১) সমর্থন জানিয়েছেন ভারতীয় ফুটবলে। আই লিগের সঙ্গে আইএসএলেও এই নিয়ম কার্যকর করা হোক অবিলম্বে, জানিয়েছেন তিনি। দলের কোচ কুয়াদ্রাতের উদ্দেশ্যে তিনি বলেছেন, নয়া নিয়ম কার্যকর হলে তা দলের পক্ষেই ভালো হবে। এএফসি’র কোনও টুর্নামেন্ট খেলতে গেলে দলকে সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে না।

জাতীয় দলের কোচ ইগর স্টিম্যাচের সুরে সুর মিলিয়ে বিদেশি কোটা হ্রাসের বিষয়টিকে সমর্থন জানিয়েছেন চেন্নাইয়িন এফসি কোচ ওয়েন কোয়েলও। ‘ভারতীয় ফুটবলাররা যত বেশি ম্যাচ খেলার সুযোগ পাবে, অনুশীলনে ভালো কোচেদের সঙ্গে ওরা যত বেশি সময় কাটানোর সুযোগ পাবে তত ভালো ফুটবল ওরা উপহার দিতে পারবে। সবমিলিয়ে ক্লাবের পাশাপাশি এতা ভারতীয় দলকেও সাহায্য করবে।’ মত কোয়েলের।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প