মুম্বই: দু’বছরের সামান্য বেশি সময় চলল লড়াইটা। শেষ অবধি হার মানলেন ইরফান। রুপোলি পর্দায় অভিনয়টা তাঁর অনায়াসেই আসত। কিন্তু হাসপাতালের বিছানায় এই মৃত্যু যন্ত্রণাটা যে সবাই সহ্য করতে পারেন না। ইরফানও তাদেরই একজন।

ক্যান্সার জয় করার সাহস দেখিয়েছিলেন যুবরাজ সিং। অজান্তেই মারণ ব্যাধিকে দমিয়ে ভারতকে এনে দিয়েছিলেন বিশ্বকাপ। তাই দু’বছরের এই বেশি সময় ইরফান খানের যন্ত্রণাটা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল তিনি। অভিনেতার অকাল প্রয়াণে শোকবার্তায় যুবি সে কথাই লিখলেন। ইরফান খানের মৃত্যু সংবাদে আবেগঘন যুবরাজ টুইটারে এদিন লেখেন, ‘আমি এই যাত্রাপথটা জানি, আমি এই যন্ত্রণাটা সম্পর্কে ওয়াকিবহাল। আমি জানি উনি শেষ অবধি লড়াই করেছিলেন। কিন্তু খুব কমজনই ভাগ্যবান হন এই লড়াইয়ে জয়ের ব্যাপারে।’

কোলন ক্যান্সারে আক্রান্ত ইরফান চরম শারীরীক অসুস্থতা নিয়েও চালিয়ে গিয়েছেন অভিনয়। শেষদিকে কারওয়ান কিংবা আংরেজি মিডিয়ামের মতো ছবিগুলিতে পর্দায় ইরফানকে দেখে বোঝার উপায় নেই মারণ একটা ব্যধির সঙ্গে লড়ছেন তিনি। মাস দেড়েক আগে তাঁর শেষ মুক্তিপ্রাপ্ত ‘আংরেজি মিডিয়াম’ ছবিজুড়েও শুধুই ইরফান। যতবার পর্দায় এসেছেন কুড়িয়ে নিয়েছেন সমালোচকদের প্রশংসা। ইরফানকে কিংবা তাঁর অভিনয়কে ভালোবাসতেন না এমন মানুষ বিরল।

কিন্তু সবাইকে ফাঁকি দিয়ে সময়ের অনেক আগেই চলে গেলেন না ফেরার দেশের।আবেগঘন বার্তায় যুবরাজ তাই আরও লিখেছেন, ‘ইরফান খান আমি নিশ্চিত যে এবার আপনি আরও নিরাপদ জায়গায় থাকবেন। আপনার পরিবারের প্রতি আমার সমবেদনা। আপনার আত্মার শান্তি কামনা করি।’

ইরফানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন সচিন তেন্ডুলকর, বিরাট কোহলিরাও। সচিন টুইটারে এক শোকবার্তায় লেখেন, ইরফানের মৃত্যুর খবরটা পীড়া দিচ্ছে। আমার চোখে অন্যতম সেরা অভিনেতা ছিলেন উনি। উনার প্রায় সমস্ত ছবি আমি দেখেছি। এমনকি শেষ ছবি আংরেজি মিডিয়ামও। অভিনয়টা তাঁর কাছে ছিল সহজাত। একজন অনবদ্য অভিনেতা ছিলেন উনি। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করি। ইরফানের কাছের মানুষদের আমার সান্ত্বনা।’

কোহলি লিখেছেন, ‘ইরফানের মৃত্যুর খবরটা ভীষণই বেদনাদায়ক। ইরফান একজন অসাধারণ একজন প্রতিভা, অভিনয়ে যাঁর বহুমুখীতা হৃদয় ছুঁয়ে যেত সকলের। ওনার আত্মার শান্তি কামনা করি।’

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV