স্টাফ রিপোর্টার, বারাকপুর: লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই ভাটপাড়াকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন পর্যায়ে ছড়িয়েছে উত্তেজনা। পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি শক্তি বাড়িয়েছে। তাতেই শাসক ও বিরোধীদের মধ্যে তরজা আরও বেড়েছে। সাম্প্রতিককালে একাধিক ইস্যুতে ভাটপাড়া উত্তপ্ত হয়েছে। এবার লক্ষ্য বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে চন্দ্রযান নিয়ে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেশদ্রোহী বলে কটাক্ষ করলেন বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং।

উত্তর ২৪ পরগনা জেলার কাঁকিনাড়ার নারায়ণপুরে বিজেপি রক্তদান শিবিরের আয়োজন করে। সেখানে উপস্থিত থাকাকালীন সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা প্রসঙ্গে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের চন্দ্রযান নিয়ে করা মন্তব্যকে কটাক্ষ করেন। এই প্রসঙ্গে বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং বলেছেন, “আমরা জানতাম উনি দেশদ্রোহী। কিন্তু দেশকে এতটা ঘৃণা করেন সেটা জানা ছিল না, উনি আমাদের দেশের বিজ্ঞানীদের মনোবল কমাচ্ছেন। যেখানে তাঁর মনোবল বাড়ানোর দায়িত্ব নেওয়া উচিত। তাদের এতদিনের পরিশ্রমকে ছোট করছেন। মহাকাশ বিজ্ঞান সম্পর্কে তিনি যে কথা বললেন। তার উত্তর উনি আগামী ভোটের সময় নিশ্চই পাবেন।”

বারাকপুরের নগরপাল মনোজ ভার্মাকে নিয়ে প্রশ্ন করা হলে অর্জুন সিং জানান, “মনোজ বর্মা একজন উন্মত্ত মানুষ। বিধায়ককে মারছে, সাংসদকে মারছে, আইনে অনেকরকম ব্যবস্থা রয়েছে। আমি ওনার থেকে চার গুন বেশি প্রোটোকলের আওতাভুক্ত। উনি আমাকে বন্দুকের বাট দিয়ে মেরেছে, মাথা ফাটিয়ে দিয়েছে, তার কৈফিয়ত ওনাকে আইনের ভাষায় দিতে হবে। উনি আমাকে মেরে উল্টে আমার নামেই অভিযোগ করছেন, আমি মার খাওয়ার পরে ওনার নামে অভিযোগ করছি, রাজ্য সরকারের পুলিশ সেই অভিযোগ নিচ্ছে না। দেশে এখনও আইন-আদালত রয়েছে। ওনার বিরুদ্ধে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করছি আমি।”

শুক্রবার সকালে গোটা দেশ যখন এক ইতিহাসের অপেক্ষা করছিল তখনই মুখ্যমন্ত্রী বলেন, দেশ জুড়ে অর্থনৈতিক বিপর্যয় থেকে দৃষ্টি ঘোরাতেই নাকি চন্দ্রযান পাঠানোর ব্যবস্থা করেছে ভারত সরকার। এমনই মন্তব্য করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপর থেকেই বিজেপি থেকে নানা কটাক্ষ মন্তব্যের সম্মুখীন হচ্ছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।