স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: দেশের করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ফের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে বৈঠকে বসতে চলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শুক্রবার এই উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সেই বৈঠকে তাঁকে আমন্ত্রণ জানানো হয়নি বলে অভিযোগ করলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেইসঙ্গে তৃণমূল নেত্রীর কটাক্ষ, “শুধু ভাষণ দিলে হবে না, পরিস্থিতি সামলান।”

শুক্রবার মুখ্যমন্ত্রীদের সঙ্গে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক করছেন মোদী। দেশের একাধিক হাসপাতালে অক্সিজেনের ঘাটতি নিয়ে এদিনের মিটিংয়ে আলোচনা করা হবে। বৈঠকে পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়েও আলোচনা হতে পারে। সেই বৈঠকে আমন্ত্রণ পাননি বলেও জানালেন মমতা। বললেন , “আমন্ত্রণ পেলে নিশ্চয়ই যোগ দিতাম।”

করোনা পরিস্থিতি বিবেচনা করে বড় সভা, মিছিল ও রোড শো’য়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে কমিশন সেই নির্দেশ পেয়েই সমস্ত সভা বাতিল করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুক্রবার আসানসোল থেকে ভারচুয়াল জনসভা করেন তিনি। সেখানেই মোদীকে একহাত নেন মমতা। কটাক্ষ করে বললেন, “শুধু ভাষণ না দিয়ে পরিস্থিতি সামলান।” তিনি বলেন, “বাংলা দখল করার জন্য ব্যস্ত হয়ে পড়েছে বিজেপি। আর সংকটে ফেলছে রাজ্যকে। WHO বহুদিন আগেই দ্বিতীয় ঢেউয়ের কথা জানিয়ে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিতে বললেও প্রধানমন্ত্রী তা করেননি। এমনকী কাউকে বিষয়টি জানানওনি। শুধু ভাষণ দিয়ে গিয়েছেন।”

কমিশনকে দুষে বললেন, “বিজেপির হয়ে কাজ করতে গিয়ে এই পরিস্থিতি তৈরি করা হল। বহুবার আবেদন করেছি এক দফায় বাকি নির্বাচন শেষ করার। কিন্তু কমিশন তাতে রাজি হয়নি। শেষলগ্নে এসে গতকাল প্রচার বাতিল করা হল, এটা আগেও করা যেত।”

এদিকে, দেশে করোনা আক্রান্তের নিরিখে বৃহস্পতিবার বিশ্বের সব কোভিড রেকর্ড ভাঙল। দেশের দৈনিক সংক্রমণের সংখ্যা এবার ৩ লক্ষ ছাড়াল ৷ গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লক্ষ ১৪ হাজার ৮৩৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ২ হাজার ১০৪ জনের।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুসারে জানা যাচ্ছে, দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৫৯ লক্ষ ৩০ হাজার ৯৬৫। মোট সুস্থ হয়েছেন ১ কোটি ৩৪ লক্ষ ৫৪ হাজার ৮৮০। মোট মৃত্যু হয়েছে ১ লক্ষ ৮৪ হাজার ৬৫৭ জনের। এই মুহূর্তে দেশে অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ২২ লক্ষ ৯১ হাজার ৪২৮ জনের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.