স্টাফ রিপোর্টার, বহরমপুর: মুর্শিদাবাদে সব থেকে বড় বিশ্বাসঘাতক তুমি৷ কারণ সকালে বিজেপি, দুপুরে কংগ্রেস এবং রাতে সিপিএম করেন অধীর চৌধুরী। এখানে সিপিএম ও বিজেপির সমর্থনে নির্বাচনে লড়ছ তুমি। এই ভাষাতেই অধীর রঞ্জন চৌধুরীকে কটাক্ষ করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

তিনি অধীর রঞ্জনের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘‘আমি জানি এখানে জোড়া খুন, জীবন্ত মানুষকে কিভাবে চুল্লিতে পুড়িয়ে মারা হয়েছে। এখন তৃণমূল যদি চোর হয় তবে তুমি হলে ডাকাতদের সর্দার। এখন সারদা নারদা নিয়ে খুব লাফাচ্ছো, তদন্ত করার হলে ১৯৮০ সাল থেকে তদন্ত শুরু কর, তাহলে সবাই জেলে যাবে। সিপিএম যাবে এবং কংগ্রেসও যাবে।’’

শুক্রবার দুপুরে বহরমপুর স্টেডিয়ামে নির্বাচনী জনসভায় অংশ নিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিনের সভায় তিনি দাবি করেন, মুর্শিদাবাদ জেলায় কংগ্রেস তৈরি করেছেন নিজে। ১৯৮০ দশক, যখন তিনি ছিলেন রাজ্য যুব কংগ্রেসের সভাপতি, আর মুর্শিদাবাদ জেলা যুব কংগ্রেস সভাপতি ছিলেন মান্নান হোসেন। সেই সময়ই মুর্শিদাবাদ জেলায় কংগ্রেস বিস্তার লাভ করে। আর এখন তার সঙ্গে আবার যোগ দিয়েছেন সেই সময়ের নেতারা।

এদিনের সভা থেকে ফের একবার আরএসএস এই নির্বাচনে কাজ করছে বলে অভিযোগ তোলেন তৃণমূল সুপ্রিমো। আগে তারা হাফপ্যান্ট পরত, আর এখন তারা শপিংমলের সুট পরে বলেও কটাক্ষ করেন তিনি। তাই সিপিএমকে একটিও ভোট নয়, কংগ্রেসকে একটিও ভোট নয়, এবং বিজেপিকেও একটিও ভোট নয়। ভোট দিন তৃণমূলকে।

সভা থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেন এই শেষ দু’দফায় যে পাঁচটি আসনে নির্বাচন হয়েছে সবকটি আসনেই জিতবে তৃণমূল। এই বাংলা সালটা খুব গুরুত্বপূর্ণ। বাংলায় চাই ৪২শে ৪২। এবার এই ৪২টি আসন নিয়ে সব আঞ্চলিক দলগুলি কেন্দ্রে সরকার গড়বে।