নয়াদিল্লি: ‘পদ্মাবতী’ ছবি নিয়ে বিতর্কের রেশ চলছেই৷ সেন্সর বোর্ডের কাছে পাঠানো আবেদনপত্রেও রয়েছে ত্রুটি তাই ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে সেই শংসাপত্র৷ এমনকি দীপিকা পাড়ুকনের শিরচ্ছেদ করতে পারলেই মিলবে পাঁচ কোটি৷ পাশাপাশি তাঁর নাক কেটে নিয়ে সুর্পনখার মতো অবস্থা করে দেওয়া হবে বলেও রীতিমত হুমকি এসেছে রাজপুত কারনি সেনার পক্ষ থেকে৷ তবে, এই সমস্ত হুমকিতে একেবারেই ঘাবড়াচ্ছেন না অভিনেত্রী দীপিকা৷ তিনি জানিয়েছেন, দেশের আইনের উপর তার সম্পূর্ণ ভরসা রয়েছে৷

একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে দীপিকা জানিয়েছেন, এই ছবিটিকে ঘিরে থাকা তাঁর প্রত্যাশার কথা তিনি জানিয়েছেন৷ কিন্তু একের পর এক সমস্যা ধীরে ধীরে পরিস্থিতি জটিল করে তুলছে ‘পদ্মাবতী’ ছবির মুক্তিকে ঘিরে৷ তাই তিনি যথেষ্ট ভেঙে পড়েছেন৷ আদৌ এই ছবিটি মুক্তি পাবে কি না সেটি নিয়ে দ্বন্দ রয়েছে৷ কিন্তু দীপিকা ভারতের বিচারব্যবস্থা এবং আইনশৃঙ্খলার প্রতি যথেষ্ট ভরসা রাখেন৷

একইসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন, এই ছবিটি তৈরির পিছনে তিনি তাঁর জীবনে দু’বছর সময় খরচ করেছেন৷ শুধু তাই নয়৷ এই ছবিটি তৈরির পিছনে তিনি যথেষ্ট পরিমাণে পরিশ্রম করেছেন৷ তাই এই ছবির মুক্তিকে ঘিরে যে সংশয় তৈরি হয়েছে সেই ঘটনায় তিনি যথেষ্ট মর্মাহত৷ কার্নি সেনার তরফ থেকে এই ছবির মুক্তিকে ঘিরে যেভাবে বিরোধিতা চলছে তাতে তিনি জানিয়েছেন, একটা শ্রেণীর মানুষ এই সামান্য বিষয়টিকে কেন এত মাথা ঘামাচ্ছে সেটিও তিনি বুঝে উঠতে পারছেন না৷

পদ্মাবতীর মুক্তি নিয়ে বিক্ষোভ দানা বেঁধেছে উত্তরপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র, রাজস্থান, গুজরাট, হরিয়ানা সহ বিভিন্ন রাজ্যে৷ বিক্ষোভকারীদের দাবি, দিল্লির শাসক আলাউদ্দিন খিলজির আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে রানি পদ্মিনী ১৬ হাজার নারীকে নিয়ে চিতায় ঝাঁপ দিয়েছিলেন। কিন্তু পদ্মাবতী সিনেমায় তার সেই মর্যাদা ও আত্মত্যাগকে যথাযোগ্য মর্যাদা দেওয়া হয়নি৷ এই নিয়েই শুরু বিতর্ক৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I