লখনউ: চলতি মাসের শেষেই প্রাক-মরশুম প্রস্তুতি শুরু করছে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। সরকারী নির্দেশ মেনে ক্রিকেটারদের এক্ষেত্রে যেতে হবে একাধিক প্রোটোকলের মধ্যে দিয়ে। তবে ভারতে করোনা যেভাবে ভয়াবহ আকার নিয়েছে তাতে অবিলম্বে এদেশে এমন কোনও সম্ভাবনা নেই বলেই মনে করছে বিশেষজ্ঞ মহল। যা বড়সড় প্রশ্নচিহ্নের মুখে ঠেলে দিয়েছে চলতি বছর ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট লিগ আইপিএলের ভবিষ্যৎকে।

জাতীয় দলের তারকা পেসার মহম্মদ শামির মতেও চলতি বছর আইপিএল অনুষ্ঠিত হওয়া সম্ভব নয়। গত ২৯ মার্চ প্রাথমিকভাবে যে টুর্নামেন্ট শুরু হওয়ার কথা ছিল, তা আপাতত অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত। অদূর ভবিষ্যতে দেশে ক্রিকেট চালু হওয়ার তেমন সম্ভাবনা নেই বলে গত মাসের শেষদিকে জানিয়েছিল বিসিসিআই। তাই আইপিএলের ভবিষ্যৎত বহুদিন ধরেই ঢাকা রয়েছে অনিশ্চয়তার কালো চাদরে।

অক্টোবরে টি-২০ বিশ্বকাপের আগে ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ আয়োজন করার যে পথ খোলা ছিল তাও সম্ভব বলে মনে করেন না শামি। স্পোর্টস তাক’কে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে শামি বলেছেন, ‘ইরফান ভাই’য়ের সঙ্গেও আমার আইপিএল আয়োজন কতটা সম্ভব সে বিষয়ে কথা হচ্ছিল। আমার মনে হয় না চলতি বছর আইপিএল আয়োজন করা যাবে। আমাদের টি-২০ বিশ্বকাপও পিছিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। সবকিছু স্তব্ধ হয়ে গিয়েছে। আমাদের সবকিছু রিশিডিউল করতে হবে। কীভাবে সবকিছু সাজানো যায় দেখতে হবে। তাই আমার মনে হয় আইপিএল আয়োজন সম্ভব নয়।’

তবে আশার কথাও শুনিয়েছেন বঙ্গ পেসার। তাঁর কথায়, লকডাউন যদি তাড়াতাড়ি শেষ হয়, তাহলে বছরের শেষে আইপিএল অনুষ্ঠিত হওয়ার একটা সুযোগ রয়েছে। শামির কথায়, টি-২০ বিশ্বকাপের আগে এটা আয়োজন করা সম্ভব হলে ভীষণ ভালো হতো। ক্রিকেটাররা তাহলে ফর্ম্যাটের সঙ্গে অভ্যস্ত হয়ে ছন্দে ফিরতে পারত। যা পরিস্থিতি তাতে করোনা পরবর্তী সময় প্রতিযোগীতামূলক ক্রিকেটে ফেরার আগে ক্রিকেটারদের ছন্দে ফিরতে একমাস সময় লাগবে বলে মনে করেন বঙ্গ পেসার।

উল্লেখ্য, দিনকয়েক আগে জাতীয় দলের সতীর্থ রোহিত শর্মার সঙ্গে ইনস্টাগ্রামে লাইভ চ্যাট সেশনে এক ভয়ঙ্কর অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছিলেন জাতীয় দলে পেস অ্যাটাকের অন্যতম ভরসা। জীবনে একাধিকবার এমন সময় এসেছে যখন নাকি সমস্ত লড়াই থেকে নিজেকে সরিয়ে জীবন থেকে ছুটি নিতে চেয়েছিলেন তিনি। জীবনে তিন-তিনবার আত্মঘাতী হতে চেয়েছিলেন। সম্প্রতি রোহিতকে এমনটাই জানিয়েছেন শামি।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প