মুম্বই: অনুরাগীদের থেকে যা আবেগ-ভালোবাসা পেয়েছেন তাতে আরসিবি ছেড়ে কখনও যাবেন না। যতদিন আইপিএল খেলবেন ততদিন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের হয়েই খেলবেন। এমনই ইচ্ছেপ্রকাশ করলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্লাবের সতীর্থ তথা বন্ধুসম এবি ডি’ভিলিয়ার্সের সঙ্গে শুক্রবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইনস্টাগ্রামে এক লাইভ চ্যাট সেশনে আড্ডা জমেছিল আরসিবি অধিনায়কের। ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগের গোড়াপত্তন থেকেই ব্যাঙ্গালোর ফ্র্যাঞ্চাইজির সঙ্গে যুক্ত কোহলি। পরবর্তীতে দলের অধিনায়ক হিসেবে কাটিয়েছেন বেশ কয়েকটি মরশুম। অথচ আজ অবধি একবারের জন্যও সেরার শিরোপা ওঠেনি ভাঁড়ারে। তাতে কী? কোহলির প্রতি অনুরাগীদের ভালোবাসা এতটুকু যে ফিকে হয়নি। তাই ভারত অধিনায়ক চান যতদিন আইপিএল খেলবেন ব্যাঙ্গালোরের হয়েই খেলবেন।

বন্ধু তথা আইপিলে তাঁর অন্যতম সেরা ব্যাটিং পার্টনারকে কোহলি চ্যাট সেশনে এদিন বলেন, ‘এই জার্নিটা অভাবনীয়। এটা আমাদের স্বপ্ন যে আমরা একসঙ্গে দলকে ট্রফি এনে দেব। আজ অবধি এমন কোনও পরিস্থিতি তৈরি হয়নি যাতে আমি ব্যাঙ্গালোর ছাড়ার কথা ভাবতে পারি। একেকটা মরশুমে সাফল্য ধরা না দিলে খারাপ লাগে নিশ্চয় কিন্তু যতদিন আইপিএল খেলব আমি এই দলটা ছাড়ব না। অনুরাগী এবং তাদের বিশ্বস্ততা এককথায় অসাধারণ।’

বিগত ন’টি মরশুমে ধরে কোহলির সঙ্গেই আরসিবি’র এক অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে রয়েছেন প্রাক্তন প্রোটিয়া অধিনায়ক। কোহলির কথার প্রত্যুত্তরে ডি’ভিলিয়ার্স জানান, ‘আমার ক্ষেত্রেও ব্যাপারটা এক। আমিও কখনও আরসিবি ছাড়তে চাই না কিন্তু তার জন্য রান করে যাওয়াটা জরুরি।’ একইসঙ্গে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তাঁদের শুরুর দিকের কথা উঠে আসে দু’জনের আলোচনায়। কোহলি-এবিডি শেয়ার করেন ক্রিকেটার হিসেবে তাঁদের পরিপক্ক হওয়া এবং বন্ধু হয়ে ওঠার বিষয়টি।

লাইভ চ্যাট সেশনে তাঁর কেরিয়ারে শুরুর দিকে মার্ক বাউচার, গ্যারি কার্স্টেন, ডানকান ফ্লেচারের অবদানের কথা এবিডি’র সঙ্গে শেয়ার করে নেন কোহলি। ভারত অধিনায়ক জানান, ২০০৮ আইপিএল মরশুমের পর বাউচারের দেওয়া পরামর্শের কথা। যেখানে প্রাক্তন প্রোটিয়া উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান কোহলিকে বলেছিলেন শর্ট বলে উন্নতি করার কথা। এরপর সব শেষে ভারত এবং দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটারদের নিয়ে সম্মিলিত একটি ওয়ান-ডে একাদশ তৈরি করেন কোহলি এবং এবিডি।

একনজরে সেই একাদশ: সচিন তেন্ডুলকর, রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, এবি ডি’ভিলিয়ার্স, জ্যাক ক্যালিস, এমএস ধোনি (উইকেটরক্ষক), যুবরাজ সিং, যুবেন্দ্র চাহাল, ডেল স্টেইন, জসপ্রীত বুমরাহ ও কাগিসো রাবাদা।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।