অমরাবতী: রবিবার আজব পুজোর সাক্ষী থাকল হায়দরাবাদ৷ অবশ্য পুজোটা আজব না বলে পুজোর উদ্দ্যেশ্যটা আজব বলা যেতেই পারে৷ রবিবার অন্ধ্রপ্রদেশের হায়দরাবাদের চিলকুর বালাজি মন্দিরে ধুমধাম করে গরু পুজো চলল৷ কিন্তু কেন হল এই পুজো? পুরোহিত জানালেন দেশে যাতে শিশু ধর্ষণের সংখ্যা কমে, তার কামনাতেই এই পুজো করা হয়৷

তিনটি গরু নিয়ে গোটা মন্দির প্রদক্ষিণ করেন পুরোহিতরা৷ সেই পুজো দেখতে ভিড় করে ছিলেন অগুণতি মানুষ৷ মন্দিরের পুরোহিতের মতে গোপুজো যে কোনও সমস্যার সমাধান করতে পারে৷ তাই দেশে ক্রমাগত বেড়ে চলা শিশু ধর্ষণ ঠেকাতে গরু পুজোর সিদ্ধান্ত মন্দিরের পুরোহিতদের৷

মন্দিরের পুরোহিত রঙ্গা রাজন বলেন বালাজি মন্দিরের চারপাশে গরু তিনটিকে তিন পাক ঘোরানো হয়৷ বাক্য, কর্ম ও চিন্তা-এই তিনটি শব্দের প্রতিভূ ওই তিন পাক৷ মন্দিরের চারপাশে তিনটি পরিক্রমার অর্থ ব্যক্তি কথা, কর্ম ও চিন্তার উন্নতি হবে এই পুজোর মাধ্যমে৷

মন্দিরের পুরোহিতদের মতে ভারতের মতো সংস্কৃতি, সভ্যতার ঋদ্ধতা আর কোনও দেশে নেই৷ সেখানে শিশু ধর্ষণের মতো ঘটনা নতুন৷ সেই ঘটনা ক্রমশই বাড়ছে, ভারতকে কলঙ্কিত করছে৷ ভারতে যেদিন থেকে পাশ্চাত্য সভ্যতার ভাবধারার বেনোজল ঢুকতে শুরু করেছে, সেদিন থেকে দেশে এই সব ঘটনা শুরু হয়েছে৷

তাঁরা আরও বলেন এদেশে শিশুরা আর নিরাপদ নয়৷ আমাদের দেশের প্রাচীন সাহিত্যে এই ধরণের কোনও উল্লেখ মেলে না৷ মহিলাদের নির্যাতনের কথা শোনা গেলেও, শিশুরা ব্যতিক্রম ছিল৷ আজ সেই ধারাও চালু হয়েছে৷ গরু পুজো মানুষের চিন্তাভাবনাকে বদলাতে সাহায্য করবে৷