স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিছানার চাদর জড়ানো এক মহিলার মৃতদেহ উদ্ধার করল পুলিশ৷ চাদর খুলতেই দেখা গেল ওই মহিলার গলা কাটা৷ এবং তার মুখে কালো একটি প্লাস্টিক জড়ানো৷ পাশেই পড়ে আছে একটি ট্রলি ব্যাগ৷ এই ঘটনায় পর্ণশ্রী থানার পুলিশ মৃতার মেয়ে ও জামাইকে আটক করেছে৷

স্থানীয়দের অভিযোগ, এলাকার শম্পা চক্রবর্তী (৪৭) কে গলা কেটে খুন করা হয়েছে৷ এমনকি খুনের পর ওই দেহ লোপাটের চেষ্টা করা হয়েছিল৷ পর্ণশ্রী থানার বাসুদেবপুর রোডের যেখানে তার দেহটি পড়ে ছিল তার ঠিক উল্টো দিকেই একটি ফ্লাটের তিন তলায় থাকতেন তিনি৷ তার সঙ্গে থাকতেন তার স্বামী ভুপাল চক্রবর্তী৷ যিনি পেশায় একজন নিরাপত্তাকর্মী৷ আর মাঝে মাঝেই ওই বাড়িতে আসতেন শম্পা দেবীর মেয়ে ও জামাই৷ গতকাল গভীর রাতে ওই বাড়ির ভিতরে চিৎকার শোনা যাচ্ছিল৷ এবং মেয়ে জামাইকেও ওই বাড়ি থেকে বেরোতে দেখা গিয়েছে৷

জয়েন্ট সিপি ক্রাইম মুরলীধর শর্মা জানান, ধারালো অস্ত্র দিয়ে শম্পা চক্রবর্তীর গলা কাটা হয়েছে৷ দেহটি বিছানার চাদরে জড়ানো এবং লাইলনের দড়ি দিয়ে বাঁধা ছিল৷ এবং মৃতার ঘর বাইরে থেকে তালা বন্ধ ছিল৷ পুলিশ তালা ভেঙ্গে ঘরের ভিতর ঢোকে৷ সেখান থেকে বেশ কিছু জিনিস বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে৷ এছাড়া দু’জনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে৷

রবিবার ভোররাতে স্থানীয় এক মহিলা দেখেন, এক ব্যাক্তি একটি বাই সাইকেলের পেছনে বিছানার চাদর মোড়া কিছু নিয়ে যাচ্ছেন৷ একটু পরে তা পড়ে যায়৷ তার পাশে রয়েছে একটি ট্রলি ব্যাগ৷ সেই অবস্থায় সে সাইকেল নিয়ে পালিয়ে যায়৷ কিন্তু একজন মহিলা তার পাশে ঘোরাঘুরি করছেন৷ সন্দেহ হওয়ায় ওই প্রত্যক্ষদর্শী সেই সময়ের ভিডিও তুলে রাখেন৷ এবং পুলিশকে খবর দেন৷ পুলিশ এসে মৃতদেহটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তে পাঠিয়েছে৷ ধৃত দু’জনকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করতে এক জানতে চাইবে,কেন শম্পা চক্রবর্তীকে খুন করা হয়েছে৷