স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা : বৃষ্টি নেই। তেমন সম্ভাবনাও কম। উল্টে এই ঘোর বর্ষার মরসুমে রাজ্যের দক্ষিণ প্রান্তে কোনও কোনও জেলার তাপমাত্রার অনুভূতি ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মতো হতে পারে।

বুধবার সকাল থেকে অস্বস্তিকর গরমের পর দুপুরের দিকে আকাশ কালো করে আসে। মেঘের গর্জনে মনে হয় এই বুঝি ঝেঁপে বৃষ্টি নামল। আদতে তেমন কিছুই হয়নি। কয়েকটি জেলায় বৃষ্টি হয় অল্পবিস্তর। যে পরিমান বৃষ্টির প্রয়োজন ছিল বা আশা জাগিয়েছিল তা হয়নি। এমন যে হবে তা আগেই জানিয়েছিল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। কারণ নিম্নচাপের ঠেলার অভাব রয়েছে দক্ষিণের জেলাগুলিতে।

বৃহস্পতিবারও এমন আবহাওয়াই থাকবে। শুক্রবারেও এমন পরিস্থিতি জারি থাকতে পারে দক্ষিনবঙ্গের জেলাগুলিতেও। মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টি হলেও আদ্রর্তাজনিত কারণে থাকবে অস্বস্তি৷ বাতাসে জলীয় বাষ্প বেশি থাকায় এই আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি চরমে উঠতে পারে।

এদিকে ফের নিম্নচাপ তৈরির সম্ভাবনা রয়েছে, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে। বৃহস্পতিবার এই নিম্নচাপ তৈরীর প্রবল সম্ভাবনা বলে জানাচ্ছেন আবহাওয়াবিদরা। কিন্তু তা দক্ষিণবঙ্গে তেমন প্রভাব ফেলবে না বলে অভিমত আবহাওয়াবিদদের। তবে মৌসুমী অক্ষরেখা দক্ষিণবঙ্গের ওপর অবস্থান করছে। জামশেদপুর থেকে দীঘা হয়ে উত্তর-পূর্ব বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে মৌসুমী অক্ষরেখা। কিন্তু ওই নিম্নচাপের সক্রিয় প্রভাব না থাকাই ভোগাবে দক্ষিনবঙ্গকে। শুধুমাত্র স্থানীয়ভাবে বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকছে।

এদিকে উত্তরবঙ্গে আগামী ৪৮ ঘণ্টায় বিক্ষিপ্তভাবে দু-এক পশলা বৃষ্টির সম্ভাবনা। আলিপুরদুয়ার কোচবিহার জলপাইগুড়িতে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা বেশি।অন্য জেলাতে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হালকা মাঝারি বৃষ্টি হতে পারে।উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতেও অতি ভারী বৃষ্টি বা প্রবল বর্ষণের সম্ভাবনা এই মুহূর্তে নেই।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা