স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে কলকাতায়। এমনটাই পূর্বাভাস হাওয়া অফিসের। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঝেঁপে বৃষ্টি হয় কলকাতা ও তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে।তেমনই সম্ভাবনা রয়েছে আজও।

সকালে গরম থাকলেও মঙ্গলবার ১৫ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। তবে বুধবার গরম কমেনি। কমেনি ঘর্মাক্ত পরিস্থিতি। সকাল থেকেই যথারীতি শুরু হয়েছে অস্বস্তিকর গরম। যা দিনভর চলবে, বিকালে হতে পারে ঝড় বৃষ্টি।
টানা প্রায় এক মাস ধরে সর্বোচ্চ আর্দ্রতা ৯০ এর উপরে রয়েছে। সেটাই আজ বুধবারও কলকাতাকে ভোগাবে।

আর্দ্রতা মাত্রার দিকে দেখলে তা আরও স্পষ্ট হবে। কাল যে বৃষ্টি হয়েছে তাতে কলকাতার আর্দ্রতা কমেনি, উল্টে আরও এক ধাপ বেড়েছে। সকালের তাপমাত্রা মঙ্গলবারের তুলনায় কমেছে কিন্তু আর্দ্রতা বেশি থাকায় অস্বস্তি যে জারি থাকবে তার প্রমান মিলছে। বুধবার শহরের সর্বোচ্চ আর্দ্রতার পরিমাণ ৯৬ শতাংশ, সর্বনিম্ন ৬৮ শতাংশ। মঙ্গলবার তা ছিল সর্বোচ্চ ৯৫ সর্বনিম্ন ৬৭ শতাংশ। মঙ্গলবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৯.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, স্বাভাবিকের থেকে যা দুই ডিগ্রি বেশি। আজ তা হয়েছে ২৬.৪, যা স্বাভাবিক।

এদিকে, হাওয়া অফিস জানিয়েছে, দিনক্ষণ স্পষ্ট না হলেও পথ পরিস্কার থাকায় দক্ষিনবঙ্গে বর্ষা আসতে পারে চলতি সপ্তাহের শেষের দিকে। আবার বিহারের দক্ষিণভাগ হয়ে, ঝাড়খণ্ড, এবং পশ্চিমবঙ্গ ও বঙ্গোপসাগরের ওপর নিম্নচাপের সৃষ্টি হয়েছে। তার হাত ধরেই বর্ষা দক্ষিণবঙ্গে আসে না কি আরও অন্য কোনও সিস্টেমের হাত ধরে বর্ষার বৃষ্টি আসবে দক্ষিণবঙ্গে এখন সেদিকেই তাকিয়ে হাওয়া অফিস।

অন্যদিকে, রবিবার বঙ্গোপসাগরের উত্তর উপকূল ঘেঁষে অসমের গোয়ালপারা, আলিপুরদুয়ার এবং গ্যাংটক হয়ে বর্ষা ঢুকছে বাংলায়। হাওয়া অফিস জানায় উত্তরবঙ্গ এবং সিকিমে ঢুকেছে মৌসুমী বায়ু। মেঘ ভাঙা বৃষ্টিতে ভাসছে উত্তর সিকিম, ফুঁসছে তিস্তা-সহ সমস্ত নদী।