হবিগঞ্জ (বাংলাদেশ): ভারত সীমান্ত লাগোয়া বাংলাদেশের সাতছড়ি জাতীয় অরণ্যে মিলেছে বিপুল অস্ত্র ও গোলা বারুদ৷ চলছে জঙ্গি অস্ত্র ঘাঁটিতে অভিযান৷ এলাকাটি ত্রিপুরার সীমান্ত থেকে মাত্র তিন কিলোমিটার দূরে ব়্যাপিড অক্যাশন ব্যাটেলিয়ন এই অভিযান চালাচ্ছে শুক্রবার রাত থেকে৷

সূত্রের খবর, হবিগঞ্জের সাতছড়ি অরণ্যে একাধিক বাংকারের সন্ধান পেয়েছে ব়্যাব। সেখানে ট্যাংক বিধ্বংসী রকেট লঞ্চারের গোলা ও বিপুল পরিমাণ গোলা-বারুদের সন্ধান মিলেছে৷ জানা গিয়েছে ব়্যাবের তরফে প্রেস ব্রিফিং করে বিস্তারিত জানানো হবে৷

ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনের আগে সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় অস্ত্র উদ্ধার ঘিরে ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য। এর আগেও ২০১৪ সালে এই অঞ্চল থেকে বিপুল পরিমাণে অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছিল। শুক্রবার বিশেষ সূত্রে খবর পেয়ে Kolkata24x7 অস্ত্র ভান্ডার উদ্ধার সংক্রান্ত খবরটি প্রকাশ করে।

পড়ুন: ভারত সীমান্তের গভীর বনে উদ্ধার বিপুল আগ্নেয়াস্ত্র, চলছে অভিযান

একদিকে ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যে অন্যদিকে বাংলাদেশের হবিগঞ্জ৷ এই সীমান্তবর্তী এলাকায় ছড়িয়ে সাতছড়ি উদ্যান৷ এই অরণ্য থেকে ২০১৪ সালেও বিপুল পরিমাণ আগ্নেয়াস্ত্র বাজেয়াপ্ত করা হয়েছিল৷ ত্রিপুরার বিধানসভা নির্বাচনের আগে সীমান্তবর্তী এলাকায় এত আগ্নেয়াস্ত্রের হদিস মেলায় চিন্তা ছড়িয়েছে ভারতের দিকেও৷

সাতছড়ি বনাঞ্চলেই একসময় ভারতের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন ‘অল ত্রিপুরা টাইগার ফোর্স'( এটিটিএফ) বা টাইগার গ্রুপের সদর দফতর ছিল৷ সংগঠনের প্রধান নেতা রণজিৎ দেববর্মাকে গ্রেফতার করে বাংলাদেশ সরকার৷ মোস্ট ওয়ান্টেড এই জঙ্গি নেতাকে পরে ভারতে পাঠানো হয়৷ বর্তমানে টাইগার গ্রুপের নেতা কড়া নজরদারির মধ্যে আছে ত্রিপুরাতেই৷

পড়ুন: ধৃত কেএলও জঙ্গিদের বয়ান ‘বাংলাদেশে বিশেষ জঙ্গি শিবির চলছে’

উত্তর পূর্বাঞ্চলের প্রধান জঙ্গি সংগঠন আলফা-র একসময়ের ঘাঁটি ছিল সাতছড়ি অরণ্য৷ পরে সংগঠনটির নাম হয়েছে আলফা (স্বাধীনতা)৷ এই সংগঠনের বর্তমান সুপ্রিমো পরেশ বড়ুয়া চিনে আত্মগোপনে থেকে মায়ানমারে জঙ্গি শিবির চালায়৷ জানা গিয়েছে, আলফা তাদের অস্ত্র ও গোলাবারুদ চোরাচালানে এটিটিএফ-এর সাতছড়ি বনাঞ্চলের ঘাঁটি ব্যবহার করত৷

আরও পড়ুন: চিন থেকে নাশকতার ছক আলফা সুপ্রিমো পরেশ বড়ুয়ার

আলফার ভারত বিরোধী ষড়যন্ত্রের অন্যতম ঘটনা হল চট্টগ্রামের ১০ ট্রাক অস্ত্র মামলা৷ বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার হয়৷ এই মামলায় জড়িয়ে যান তৎকালীন বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী লুৎফুজ্জামান বাবর ও অন্যতম মন্ত্রী তথা জামাত ইসলামি শীর্ষ নেতা মতিউর রহমান নিজামি৷ ১৯৭১ সালে যুদ্ধপরাধের মামলায় নিজামির ফাঁসি হয়েছে৷ লুৎফুজ্জামান বাবর বন্দি৷ এই মামলায় পলাতক পরেশ বড়ুয়াকেও মৃত্যুদণ্ডের সাজা দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার৷

 

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।