বর্ধমান (পূর্ব বর্ধমান): বিহার থেকে আসা বিরাট পরিমাণ বেআইনি টিয়া পাখি চোরাচালান আটকে দিল বনদফতর। এর আগেও বর্ধমানে টিয়া পাচারকারীরা ধরা পড়েছে।

সূত্রের খবর, বাংলাদেশ থেকে এই পশুপাখি চোরাচালান করা হয় নিয়মিত। সেখানকার ডন মামা হল এর মূলচক্রী। তার সাগরেদ হল বড়দা। সে ভারতীয়। শনিবার ৫০০-র বেশি টিয়া পাখি বাজেয়াপ্ত করেছে বনদফতর ও ক্রাইম কন্ট্রোল ব্যুরো।

জানা গেছে, পাটনা থেকে বাসে করে পাচারের সময় উদ্ধার করা হয় ৫২৪ টি টিয়াপাখি। পাচারের অভিযোগে শেখ আক্তার ও বৈশাখী মহম্মদ নামে দু’জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধৃতদের বাড়ি বর্ধমানের বাজেপ্রতাপপুরে।

গোপন সূত্রে খবর পেয়ে বর্ধমান শহরের নবাবহাট বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে পাটনার রওশন নগর থেকে আসা একটি বাসে অভিযান চালান বনকর্মীরা। বাস থেকে খাঁচাবন্দি টিয়াপাখি গুলিকে উদ্ধার করা হয়।

ধৃতদের বর্ধমান আদালত ১৪ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে। পূর্ব বর্ধমান জেলা বনাধিকারিক দেবাশিস শর্মা জানিয়েছেন, আদালতের নির্দেশে উদ্ধার করা টিয়াপাখিগুলিকে খোলা আকাশে ছেড়ে দেবেন। তিনি জানিয়েছেন, ভারতীয় পশু আইন অনুসারে টিয়াপাখি পোষা অন্যায়।