হায়দরাবাদঃ দেশ জুড়ে এই মুহূর্তে চলছে করোনা ভাইরাসের জেরে লক ডাউন। পাশপাশি একাধিক অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞরা শঙ্কা প্রকাশ করেছেন চাকরি হারানো নিয়ে। বেসরকারি সব কর্মচারীরাই এই মুহূর্তে নিজেদের চাকরি নিয়ে যথেষ্ট শঙ্কিত। প্রভাব পড়েছে সরকারি কর্মচারীদের বেতনেও। ইতিমধ্যে বেশ কয়েকটি রাজ্য সরকারি কর্মীদের ডিএ বন্ধ করেছে। এমনকি বেতনও কমিয়ে দেওয়া হয়েছে।

এরই মধ্যে অন্ধ্র সরকার সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন চাকরির মাপকাঠি ঘোষণা করা হয়েছে। সেই অনুযায়ী উচ্চ মাধ্যমিক পাশ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এর আগে সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে দশম শ্রেণী পাসকে সর্বনিম্ন শিক্ষার মাপকাঠি হিসেবে ধরা হত। কিন্তু নয়া এই সিদ্ধান্ত কতটা সুবিধাদায়ক হবে তা এখনই বোঝা যাচ্ছে না। সরকারের তরফে নয়া সিদ্ধান্ত নিয়ে বিস্তারিত তথ্য দ্রুত প্রকাশ করা হবে বলেও জানানো হয়েছে।

তবে এই লক ডাউনের জেরে প্রভাব পরেছে শিক্ষা ক্ষেত্রেও সরকারের তরফে জানানো হয়েছে পিছনো হয়েছে শিক্ষাবর্ষ। স্বাভাবিক ভাবে মার্চ এপ্রিল মাসে পরীক্ষা হয়ে ছুটির ঘোষণা করা হয়। কিন্তু এবারে তা করা সম্ভব হয়নি। এই লক ডাউনের জেরে অন্ধ প্রদেশ শিক্ষা দফতরের তরফে পয়লা অগস্ট থেকে ৩১ জুলাই ২০২১ পর্যন্ত নয়া শিক্ষাবর্ষের ঘোষণা করেছেন।

এছাড়া যেহেতু লক ডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে সেই কারণে পরিস্থিতি ঠিক কোনদিকে যাবে তা নিয়ে যথেষ্ট চিন্তার মধ্যে রয়েছেন প্রশাসনিক কর্তারা। এছাড়া পড়ুয়ারাও কবে স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারবেন তা নিয়েও এই মুহূর্তে নিশ্চিতভাবে কিছু বলা যাচ্ছে না। তবে আশা করা হচ্ছে খুব তাড়াতাড়ি পরিস্থতি স্বাভাবিক হবে।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা