হাওড়াঃ আগামিকাল মঙ্গলবার থেকে আংশিক রেল পরিষেবা শুরু হতে চলেছে৷ দিল্লি থেকে দেশের গুরুত্বপূর্ণ ১৫টি শহরের মধ্যে এই ট্রেন চালাবে রেল৷ ইতিমধ্যেই রেল মন্ত্রক জানিয়ে দিয়েছে, এই ট্রেনগুলির টিকিট শুধুমাত্র আইআরসিটিসি-র ওয়েবসাইট থেকেই কাটা যাবে।

আপাতত নয়াদিল্লি থেকে ১৫ জোড়া ট্রেন চলবে। নয়াদিল্লি থেকে ট্রেন চলবে হাওড়া, পাটনা, রাঁচি, আগরতলা, ভুবনেশ্বর, চেন্নাই, ডিব্রুগড়, মুম্বই সেন্ট্রাল, বেঙ্গালুরু, আহমেদাবাদ সহ আরও কয়েকটি প্রধান শহরে। হাওড়া স্টেশনেও আসবে ট্রেন। আর তার আগে সোমবার থেকেই হাওড়া স্টেশনে চলছে যুদ্ধকালীন প্রস্তুতি। ট্রেন আসার আগেই চলছে প্রস্তুতি।

যুদ্ধকালীন তৎপরতায় সাফাই করা হচ্ছে প্ল্যাটফর্ম চত্বর। টানা প্রায় ৬ সপ্তাহ বন্ধ থাকার পর মঙ্গলবার থেকে ধাপে ধাপে যাত্রিবাহী ট্রেন চালু করছে রেল মন্ত্রক। এর আগে আজ সোমবার হাওড়া স্টেশনে ঘুরে যান আইজি। তিনি স্টেশনের নিরাপত্তার বিষয় নিয়ে রেলের আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলেন। পাশাপাশি সোশ্যাল ডিসটেস্ট রেখে কীভাবে যাত্রীদের বের করা সম্ভব সেটাও নিয়েও আলোচনা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে।

রেল সূত্রে খবর,মাত্র ১৫ মিনিটেই শেষ প্রথমদিনের ট্রেনের টিকিট৷ শেষ হাওড়া থেকে দিল্লি যাওয়ার প্রথম দিনের টিকিট। বুকিং চালুর ১৫ মিনিটেই বিক্রি ১০৭২টি টিকিট।

প্রথম ৫ মিনিটেই শেষ প্রথম শ্রেণির টিকিট।প্রায় একই সময়ে শেষ দিল্লি থেকে হাওড়ার ট্রেনের টিকিটও৷ মঙ্গলবার থেকে সীমিত রেল পরিষেবা চালু হচ্ছে। তার জন্য সোমবার বিকেল ছটায় খুলে দেওয়া হয় আইআরসিটিসির ওয়েবসাইট৷

এক সময় অনলাইন টিকিট বুকিংয়ের জন্য এত মানুষ লগ ইন করেন এই ওয়েবসাইটে, যে সেই চাপ নিতে পারেনি আইআরসিটিসি। বুকিং খোলার কিছুক্ষণের মধ্যেই স্তব্ধ হয়ে যায় সেটি। সমস্যায় পড়েন বহু মানুষ। দুঃখপ্রকাশ করে রেল মন্ত্রক জানায় খুব দ্রুত ফের টিকিট বুকিং শুরু হবে।

প্রাথমিকভাবে দিনে ১৫ জোড়া ট্রেন চালানো হবে বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী। প্রাথমিকভাবে এই ট্রেনগুলি চালানো হবে দিল্লি থেকে। যেসব জায়গায় প্রাথমিকভাবে ট্রেন চালানো হবে, সেগুলি হল, ডিব্রুগড়, হাওড়া, পাটনা, বিলাসপুর, রাঁচি, ভুবনেশ্বর, সেকেন্দ্রাবাদ, বেঙ্গালুরু, চেন্নাই, তিরুঅনন্তপুরম, মাদগাঁও, মুম্বই সেন্ট্রা, আমেদাবাদ ও জম্মু তাউই। ট্রেনের ভাড়া সুপার ফাস্ট ট্রেনের সমান হবে বলে জানানো হয়েছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV