হাওড়া: বেলুড়ে গুলিকান্ডের বিচার চেয়ে হাওড়ায় বিক্ষোভ বিজেপির৷ পুলিশ কমিশনারের অফিসের সামনে চলে ওই বিক্ষোভ৷ বিজেপির অভিযোগ, কিছুদিন আগে তাদের কর্মীদের মারধর করা হয়৷ এমনকি তাদের একজন কর্মী গুলিবিদ্ধ হন৷ এর পাশাপাশি তৃণমূল-পুলিশ আঁতাতে’র প্রতিবাদে হাওড়ায় পুলিশ কমিশনারকে স্মারকলিপি দেওয়া হয়েছে৷

এছাড়া বৃহস্পতিবার হাওড়া সদর বিজেপি যুব মোর্চার তরফ থেকে প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ কর্মসূচির আয়োজন করা হয়৷ পুলিশ কমিশনারের অফিস ঘেরাও করার পরিকল্পনা ছিল তাদের৷ কিন্তু কমিশনারের অফিসের কিছুটা আগেই ব্যারিকেড করে আটকে দেওয়া হয় বিজেপি কর্মীদের৷ তখন সেখানেই চলে বিক্ষোভ৷

এদিন দুপুরে বিজেপির ব্যারাকপুরের লোকসভার সাংসদ ও রাজ্য বিজেপির সহ সভাপতি অর্জুন সিংয়ের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল হাওড়া পুলিশ কমিশনারের অফিসে স্মারকলিপি জমা দিতে যান।

কিন্তু আগে থেকে সময় দেওয়া সত্ত্বেও কমিশনার অফিসে উপস্থিত ছিলেন না অভিযোগ। বিষয়টি সংসদে উত্থাপন করবেন বলে জানানেন সাংসদ অর্জুন সিং৷ কিছুদিন আগে হাওড়ার বেলুড়ে বিজেপি-র একটি সভা উপলক্ষে পতাকা লাগাচ্ছিল বিজেপি কর্মীরা৷ সেই সময় তাদের বাধা দেয় তৃণমূল৷

এমনকি মারধর করে বলে অভিযোগ৷ কর্মীদের মারধরের প্রতিবাদে তারপরের দিন সকালে জি টি রোড অবরোধ করেন বিজেপি সমর্থকরা৷ অভিযোগ, অবরোধ চলাকালীনই বিজেপি কর্মী সমর্থকদের উপরে বাঁশ, লাঠি নিয়ে হামলা চালান তৃণমূল আশ্রিত দুস্কৃতিরা৷

দু’ পক্ষে শুরু হয় সংঘর্ষ৷ ইটবৃষ্টি,বোমাবাজি ও গুলি চলে বলে অভিযোগ৷ সূত্রের খবর, গুলিতে একজন আহত হয়েছেন৷ বিজেপির দাবি গুলিবিদ্ধ ব্যক্তি তাদের কর্মী৷ আহত ব্যক্তিকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়৷ তাছাড়া বাইক ও গাড়ি ভাঙচুর করে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়৷ পাল্টা অভিযোগ ছিল তৃণমূলেরও৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।