পেঁয়াজের রস যে চুলপড়াকে রোধ করে তা কমবেশি অনেকেই জানেন৷ তবে সকলে যে ভুলটা করেন কেবল পেঁয়াজের রস বের করে নিয়ে টাকের জায়গায় বা কম চুলের জায়গায় ঘষে নেন৷ কিন্তু এই একই জিনিস যদি আপনি একটি প্যাকের মতো করে ব্যবহার করতে পারেন তাহলে চুলপড়া এবং টাকের সমস্যা পুরোপুরি দূর হবে৷ পেঁয়াজের রসের সঙ্গে মিশিয়ে নিনি আরও কয়েকটা জিনিস৷ তারপর চুলে লাগান৷ কয়েক মাস এই পদ্ধতি অনুসরণ করলে আপনি আশানুরূপ ফল পাবেন৷

একটি মাঝারি পেঁয়াজ নিয়ে, খোসা ছাড়িয়ে ভালো করে কুচিয়ে নিন৷ তারপর সেটাকে ব্লেন্ড করে নিন৷ একটি পাতলা কাপড়ে পেঁয়াজটাকে নিয়ে ভালো করে চিপে রস বের করে নিন৷

যে পাত্রে রসটি রেখেছেন সেটা একটা পাতলা কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখুন৷ এবার একটি প্যানে দুই চামচ নারকেল তেল গরম করে নিন৷ ভালো মতো গরম হওয়া অবধি অপেক্ষা করুন৷

তেলের মধ্যে এক চামচ অবিভ ওয়েল দিয়ে আরেকটু গরম করে নিন৷ গ্যাস থেকে প্যান নামিয়ে নিয়ে ঠান্ডা হওয়ার জন্য অপেক্ষা করুন৷

পেঁয়াজের রসের সঙ্গে এই তেল মিশিয়ে নিন৷ ভালো করে মিশিয়ে নেওয়ার পর কয়েক ফোঁটা লেবুর রস ফেলে দিন৷ এতে পেঁয়াজের উদ্র গন্ধ চলে যাবে৷

এবার চুলের জট ছাড়িয়ে নরম ব্রাশ দিয়ে মাথার তালু থেকে চুলে লাগান৷ পুরো চুলে নাও লাগাতে পারেন৷

লাগানো হয়ে গেলে কয়েক মিনিট আঙুল দিয়ে মাসাজ করতে থাকুন৷ মাসাজ হয়ে গেলে এক ঘন্টা অপেক্ষা করুন৷

এরপর ভালো করে শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন৷ শ্যাম্পুর পর অবশ্যই কন্ডিশনার লাগাবেন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।