আর কিছু ঘন্টা পরেই লক্ষী আরাধনায় মাতবে বঙ্গবাসী৷ ধনকুবেরকে বন্দি করতে এখন তৎপর প্রত্যেকেই৷ তবে এই আরাধনার মাঝে যদি সঠিকভাবে সঞ্চয় করা যায়, তাহলে লক্ষ্মী সারাজীবনই থাকবে আপনার ঘরে ৷ আর এই দায়িত্ব নিতে হবে আপনাকেই ৷ কিভাবে আটকাবেন লক্ষীকে, রইল টিপস
১। নিজের আয়ের উপর ভিত্তি করে নির্ধারণ করুন আপনি কতটুকু খরচ করবেন এবং সপ্তাহ বা মাস শেষে কতটুকুই বা সঞ্চয় করবেন। দরকারে একটা লিস্ট বানিয়ে নিন মাসের শুরুতেই৷
২। আপনার জীবনযাত্রার জন্য একান্ত প্রয়োজনীও কোন কারণ ছাড়া অতিরিক্ত ঋণ নেয়া পরিহার করুন বরং আগের করা ঋণ থাকলে তা পরিশোধ করার চেষ্টা করুন।
৩। যেকোনো বিল, সন্তানদের দেখাশোনা, ইনস্যুরেন্স, খাবার, পোশাক এবং যাতায়াত বাবদ আপনার মোট খরচের দিকে লক্ষ্য রাখুন ।
৪। অপ্রয়োজনীয় বা বিলাসিতা বাবদ খরচ কমানোর চেষ্টা করুন।
৫। সাধারণত বাজারে কেনাকাটার সময় আমরা খরচের দিকে লক্ষ্য রাখতে পারি না। তাই আগে থেকেই প্রয়োজনীয় সামগ্রীর তালিকা প্রস্তুত করে নিন।
৬। আজকাল অনেক পোশাকের দোকানে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য মূল্য ছাড় দেয়া হয়। এছাড়া অনলাইনেও স্বল্প মূল্যে পোশাক সহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক পণ্য কেনা যায়।
সঞ্চয় পরিকল্পনা
৭ আপনার চাকুরীতে যদি অবসর ভাতা থাকে, তবে অবশ্যই তার জন্য সঞ্চয়ে রাজি হয়ে যান। মনে রাখবেন, বর্তমানে যেকোনো প্রয়োজনে আপনি সেই অর্থ ব্যবহার করলে যতটা না লাভবান হবেন, তার চাইতে অনেক বেশি লাভবান হবেন তা ভবিষ্যতের জন্য সঞ্চয় করে রাখলে।
৮। আপনার সন্তানের পড়ালেখার ব্যাপারে সরকারি, বেসরকারি বিভিন্ন দাতা প্রতিষ্ঠান কর্তৃক প্রদানকৃত বৃত্তির ব্যাপারে আবেদন করুন।
৯। এছাড়া জরুরী অবস্থার জন্য নির্দিষ্ট কোন নির্ভরশীল জায়গায় নিয়মিত অর্থ সঞ্চয় করুন।
আপনার আর্থিক অবস্থা সম্পর্কে সন্তানদের বলুন, যাতে তারা সঞ্চয়ী এবং মিতব্যয়ী হওয়ার প্রয়োজনীয়তা বুঝতে পারে।
সন্তানদের শেখান যে তাদের সহায়তা সংসারে খুবই প্রয়োজনীয়। এমনকী, একদম ছোট বাচ্চাটিকেও বলুন নিজের খেলনা নিজে গুছিয়ে রাখতে। এসব কাজে তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে উৎসাহিত করুন। এতে গৃহকর্মীর খরচও কমবে, সেইসাথে আপনার সন্তানরাও স্বনির্ভর হতে শিখবে।