প্রতীকী ছবি

নয়াদিল্লি : জনপ্রিয় মেসেজিং প্ল্যাটফর্ম হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমেও কিন্তু হ্যাক হতে পারে আপনার ফোনের যাবতীয় তথ্য। তাই সাবধান। ব্যাঙ্ক কর্মী সেজে ফোন করা বা নতুন নতুন আকর্ষণীয় মেসেজ পাঠানো এখন পুরোনো কায়দা। এবার থেকে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে প্রতারণার নয়া ফাঁদ পেতেছে হ্যাকাররা।

দেশের লক্ষ লক্ষ মানুষ হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন। ফলে হোয়াটসঅ্যাপকে প্রতারণার মাধ্যম বানানো বেশ সহজ। এই ধরণের জালিয়াতির ক্ষেত্রে প্রথমে হ্যাকার একটি মেসেজ পাঠায় হোয়াটসঅ্যাপে। তারপরে বন্ধুত্বের ছল করে আপনাকে বলা হবে একটি ওটিপি ভুল করে আপনার নম্বরে চলে এসেছে।

সেই ওটিপি আপনি দিলেই হ্যাকার আপনার ব্যক্তিগত চ্যাটের বিস্তারিত তথ্য পেয়ে যাবে। এরপর আপনার হোয়াটসঅ্যাপ হ্যাকার নিজে ব্যবহার করতে পারবে ও ফোনের কনট্যাক্টসদের থেকে টাকা চাইতে পারে। সেক্ষেত্রে আপনার নিজের ফোনে আর আপনার হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টটি কাজ করবে না।

কিন্তু কীভাবে এই জালিয়াতি আটকাবেন। এ জন্য রয়েছে দুটি বিশেষ পথ। প্রথম উপায়ে আপনাকে যাচাই করতে হবে মেসেজ যে পাঠিয়েছে, সে সত্যি আপনার বন্ধু নাকি রহস্যজনক কোনও অপরিচিত।

দ্বিতীয়ত হোয়াটসঅ্যাপে টু স্টেপ ভেরিফিকেশন অন রাখা। এতে অ্যাকাউন্টে লগ ইন করলেই ৬ ডিজিটের একটি পিন আসবে। এতে অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত থাকবে।

১. প্রথমে হোয়াটসঅ্যাপের সেটিংসে যান।

২. এরপর ‘অ্যাকাউন্ট’ অপশনে ট্যাপ করে টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন এনেবল করুন।

৩. এরপর আপনার পছন্দমত ছয় ডিজিটের একটি পিন বেছে নিন এবং কনফার্ম করুন।

৪. অ্যাকাউন্ট অ্যাক্সেস করার জন্য একটি ইমেল আইডি দিন অথবা ইমেল না দিতে চাইলে ‘স্কিপ’ বোতামে প্রেস করুন। হোয়াটসঅ্যাপ এখানে আপনাকে একটি ইমেল অ্যাড্রেস দিতে বলবে, যাতে টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন রিসেট করা যায়। এটি আপনার অ্যাকাউন্টকে আরো সুরক্ষিত রাখতে সাহায্য করে।

৫. এরপর ‘নেক্সট’ বাটনে ক্লিক করুন।

৬. ইমেল অ্যাড্রেস কনফার্ম করে ‘সেভ’ অথবা ‘ডান’ বাটনে ক্লিক করুন। এরপর যখনই আপনি হোয়াটসঅ্যাপে লগ ইন করবেন, তখনই ওই ৬ ডিজিটের পিন আপনার মোবাইলে দিতে হবে। এতে হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট সুরক্ষিত থাকবে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।