ব্রণ শব্দটা খুবই আতঙ্কের যে কোন মেয়ের কাছে। কারণ একটা ব্রন পুরো মুখের সৌন্দর্য টাই নষ্ট করে দেয়।শারীরিক সমস্যার কারণে অনেক সময় মুখে ব্রণ হয়েই তাহকে। তবে তা দূর করার ও অনেক উপায় রয়েছে।
এক ঝলকে দেখে নিন কি সেই উপায়:

মুখ পরিষ্কার রাখার জন্য ঠাণ্ডা জল দিয়ে মুখ ধোয়ার মত বিকল্প আর কিছু নেই। দিনে অন্তত দুবার করে মুখ ধুয়ে পরিষ্কার করুন। তবে মুখে ব্রণ হলে দিনে একবার করে মুখ পরিষ্কার করতে হবে। অতিরিক্ত মুখ ধোয়া ত্বক শুষ্ক করে দেয়। শুষ্ক ত্বকে তেল বেশি উৎপন্ন হয়। যা ব্রণ হওয়ার প্রবণতা বৃদ্ধি করে।

ব্রণ দূর করার জন্য অ্যান্টিবায়োটিক ক্রিম ব্যাবহার করুন। বাড়িতে যে পেস্ট আপনি ব্যাবহার করেন তা লাগাতে পারেন ব্রনের স্থানে। তবে ব্রণের স্থানে বিভিন্ন ক্রিম ব্যবহার করলে ত্বকের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
ব্রন হলে মেকআপ করা থেকে বিরত থাকুন। বেশি মেকআপ ব্যাবহার করলে ব্রন আরও স্থায়ী হতে পারে।

ব্রণ হলে কখনই তাতে নখ দিয়ে খোঁচাবেন না। তাহলে ওই জায়গায় দাগ হয়ে যেতে পারে। ব্রণের জায়গায় নখ দেওয়া বা চুলকানো থেকে দূরে থাকুন।

খুশকি থেকে অনেক সময় ব্রণ দেখা দেয়। নিয়মিত চুল পরিষ্কার রাখুন। চুলে খুশকি দেখা দিলে তা দূর করার ব্যবস্থা করুন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.