তীব্র গরমে জীবন জেরবার। ক্রমেই চড়ছে তাপমাত্রার পারদ। দুর্বিষহ গরমে টেকা দায়। পেটের টানে বা অন্য কোনো কাজে যাঁদের বাইরে বেরোতে হয় রোদের তাপে তারা যেনো ঝলসে যাচ্ছেন। এই পরিস্থিতি ঠান্ডা পানীয়ের প্রতি ঝোঁক বাড়াটাই স্বাভাবিক। ঠান্ডা পানীয় হিসেবে অনেকই বেছে নেন কোল্ড ড্রিংকস, যাতে আদতে লাভের থেকে ক্ষতি বেশি। চিকিৎসকদের মতে কোল্ড ড্রিংকসে উপস্থিত বিভিন্ন রাসয়নিক পদার্থ বিভিন্ন শারীরিক সমস্যার সৃষ্টি করে। এখন উপায় কি?

আপনি খুব সহজেই বাড়িতে বানিয়ে নিতে পারেন আম পোড়া সরবত। যা খেতেও সুস্বাদু ও স্বাস্থ্যকর। চিকিৎসকদের মতে আম পোড়া সরবত তীব্র গরমে শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে এবং স্বাস্থ্যকর। আজ আপনার জন্য রইলো আম পোড়া সরবতের রেসিপি।

উপকরণ: ধনে পাতা কিছুটা, কাঁচা লঙ্কা, ৩ টি কাঁচা আম, এক টেবিল চামচ বিট লবণ, পরিমাণ মতো চিনি, সামান্য কালো জিরা, ১ টেবিল চামচ পাতি লেবুর রস, ফ্রিজের ঠান্ডা জল।

কীভাবে বানাবেন: প্রথমেই ব্লেন্ডারে ধনে পাতা ও কাঁচা লঙ্কা ও সামান্য জল দিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। এবার গ্যাস জ্বালিয়ে ৩ টি কাঁচা আম গ্যাসের আগুনে ভালো করে পুড়িয়ে নিন। আম গুলো একটু ঠাণ্ডা হয়ে গেলে এক বাটি জলে আম গুলি কিছুক্ষণ ডুবিয়ে হাত দিয়ে খোসা ছাড়িয়ে নিন । এবার হাত দিয়ে চেপে আম থেকে আটি আলাদা করুন। এবার আলাদা করা আম গুলি ব্লেন্ডারে দিয়ে দিন। ধনে পাতা ও লঙ্কার মিশ্রণ ব্লেন্ডারে ঢেলে দিন। এবার এক টেবিল চামচ বিট লবণ, পরিমান মতো চিনি, সামান্য কালোজিরা ও এক টেবিল চামচ পাতিলেবুর রস ও ফ্রিজের ঠান্ডা জল দিয়ে ভালো করে ব্লেন্ড করে নিন। ব্লেন্ড করা হয়ে গেলেই আপনার আম পোড়া সরবত সম্পূর্ন তৈরী নয়। চেখে দেখুন নুন ও মিষ্টি ঠিক আছে কিনা। প্রয়োজন হলে স্বাদনুসারে নুন ও চিনি দিয়ে আবার ভালো করে ব্লেন্ড করুন। এবার গ্লাসে বরফ দিয়ে ঠান্ডা ঠান্ডা পরিবেশন করুন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.