সানগ্লাস পরে পেঁয়াজ কাটেন নাকি হেলমেট? পেঁয়াজ কাটার সময় চোখ দিয়ে গড়িয়ে পড়া অবিশ্রান্ত বারিধারা আটকাতে ঠিক কী কী ট্রাই করেছেন বলুন তো? কিন্তু জানেন কী কিছু নিয়ম মানলেই এই সমস্যার হাত থেকে রেহাই পেয়ে পেয়ে যাবেন৷ নীচে রইল তারই হদিশ-

১) পেঁয়াজের খওসা ছাড়িয়ে ঘন্টাখানেক তা ফ্রিজে রেখে দিন৷
২) পেঁয়াজের গোড়া এবং ওপরের আস্তরণ কেটে জলে ভিজিয়ে দিন৷ একটু পরে সেটি তুলে কুচিয়ে নিতে পারেন৷
৩) ভিনিগারের সাহায্য নিতে পারেন৷ পেঁয়াজ বা চপিং বোর্ডে ভালো করে ভিনিগার মাখিয়ে নিন কাটার আগে৷
৪) নুন জলেও পেঁয়াজ কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রাখতে পারেন৷ এতে আর চোখ জ্বালা করবে না৷ জলও পড়বে না চোখ দিয়ে৷
৫) অনেকের মতে, পেঁয়াজ কাটার সময় কাছে একটি মোমবাতি জ্বালিয়ে রাখলে নাকি পেঁয়াজের ঝাঁঝ চোখকে ততোটা কষ্ট দিতে পারে না৷

যে পেঁয়াজ নিতে এতো কথা তার গুণাগুনেও এই ফাঁকে চোখ বুলিয়ে নিতে পারেন– ব্রণ সমস্যা কমবেশি সকলেরই রয়েছে৷ বিশেষত অয়েলি স্কিন যাদের তারা খুব ব্রণের সমস্যায় ভোগেন৷ পেঁয়াজ নিয়ে মুখে নিত্যদিন ঘষুন৷ রস থাকা অবধি ঘষতে থাকুন৷ তারপর মুখ ধুয়ে ফেলুন৷ এতে ব্রণ কমবে৷

শরীরের যেকোনও পোড়া জায়গায় পেঁয়াজ কেটে ঘষে দিন৷ প্রথমদিকে খানিক জ্বালা করলেও পরের দিকে একেবারে তা ঠিক হয়ে যাবে৷ এতে পোড়া দাগও বেশি গাঢ় হবে না৷

ত্বকে কালো দাগের জন্য দামি ক্রিম ব্যবহার করছেন? কিংবা পার্লারে, অন্য কোথাও গিয়ে ট্রিটমেন্ট করাচ্ছেন? তাহলে অবশ্যই এসব ছেড়ে দিন৷ মুখটা জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন৷ তারপর একটা পেঁয়াজ কেটে মুখে ভালো করে ঘষতে থাকুন৷ সপ্তাহ দুয়েকের মধ্যেই উপকার পাবেন৷

শরীরের তাপমাত্রা অতিরিক্ত গরম হয়ে গেলে নাক থেকে রক্ত পড়ে৷ এই সমস্যায় যখনই পড়বেন সেই মুহূর্তে পেঁয়াজ কেটে নাকের ঠিক নীচে ধরে রাখুন৷ দেখবেন কিছুক্ষণ পরই নাক থেকে রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে গিয়েছে৷ তবে তার আগে এই সব সমস্যার জন্য ডাক্তারের সঙ্গে একবার কথা বলে নেওয়াই ভালো৷