আজকাল বাজারে যে রত্ন পাওয়া যায় তার রঙ ও ঔজ্জল্য দেখলে চোখ ধাঁধিয়ে যায়৷ এই সব পাথর থেকে বর্ণচ্ছটার আভা দেখতে পাওয়া যায়৷ কিন্তু প্রশ্ন হল এই রত্ন পাথরের ভিড়ে কি করে চিনবেন কোনটা আসল আর কোনটা নকল?

একটা একটা পাথর চেনার উপায় এক এক রকম৷ আজ পান্না চেনার সহজ পদ্ধতি সম্পর্কে আলোচনা করা হবে৷ ঘরে বসেই পাথর খাঁটি কিনা যাচাই করে নিতে পারবেন৷

পান্না চেনার সহজ উপায়ঃ

পান্নাকে জলে ফেলে রাখলে সবুজ বর্ণের কিরণ দেখতে পাওয়া যায়৷
সাদা কাপড়ের ওপর পান্না রেখে একটু উঁচুতে তুলে ধরলে সাদা কাপড় সবুজ দেখায়৷
এই দুটি ঘরোয়া পদ্ধতিতে পান্না খাঁটি কিনা তা সহজে বোঝা যায়৷

পান্নার শোধন: পাথর ধারণ করার আগে তা শোধন করে নেওয়া উচিত৷ শোধন করে না পড়লে তার কোনও কার্যকারিতা থাকে না৷ পান্না শোধন করা কোন কঠিন কাজ নয়৷ কাঁচা দুধে চব্বিশ ঘন্টা পান্নাকে ডুবিয়ে রাখতে হবে৷ এরপর বুধবার দিন সেই পাথর ধারণ করবেন৷

পান্না কোথায় পাওয়া যায়?
পান্না সাধারণত কলম্বিয়া ও ব্রাজিলে পাওয়া যায়৷ কলম্বিয়ান পান্না সর্বশ্রেষ্ঠ৷ তাই এর দামও বেশি৷ এটি দেখতে হয় স্বচ্ছ সবুজ৷ তারপরে আসে ব্রাজিলিয়ন পান্না৷ এটি দেখতে কালচে বা ঘোলাটে সবুজ৷

পান্নার অন্য নাম: বাংলার বলা হয় পান্না, মহারাষ্ট্রে পাচুরত্ন, গুজরাতে নীলম, ইংরাজীতে এমারেল্ড ও লাটিনে স্যামবাগ ডাস৷

কেন পান্না: যাদের রাশিচক্রে বুধ খারাপ তাদের পান্না ধারণ করা উচিত৷ অবশ্যই বুধবার এই রত্ন শোধন করে ধারণ করা উচিত৷

উপরত্ন: ফিরোজা, মারগাম,ওনেক্স ও জেড পাথর৷