সঠিক সময়ে স্টেশনে পৌঁছেও ট্রেনের দেখা নেই৷ আর, তখনই ‘লাইভ ট্রেন স্টেটাস’ চেক করার দরকার পড়ে৷ যেটা বেশ খানিকটা বিরক্তিকর কাজ৷ কল করতে হয় ভারতীয় রেলওয়ের রিসার্ভেসন এনকোয়ারি নম্বর ১৩৯ তে৷ এছাড়াও, আইআরসিটিসির ওয়েবসাইটের মাধ্যমেও জানা যায় ট্রেনের স্টেটাস৷

কিন্তু, কিছুদিন আগেই পুরনো পদ্ধতিটিকে আপডেট করতে ভারতীয় রেলওয়ে অনলাইন ট্রাভেল ওয়েবসাইট মেকমাইট্রিপের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে৷

আর সেটির ফলেই উপকৃত হয়েছেন সাধারণ মানুষ৷ যেটির মাধ্যমে পিএনআর স্টেটাস, লাইভ ট্রেন স্টেটাস সহ ট্রেন সংক্রান্ত একাধিক তথ্য জানতে পারবেন যাত্রীরা৷ কিন্তু, অনেকেই জানেন না কীভাবে কাজ করে এই নয়া আপডেটটি? বা লাইভ ট্রেন স্টেটাস জানতে গেলে ঠিক কী তথ্যের প্রয়োজন পড়বে? তাদের জন্যই রইল টিপসগুলি৷ যাত্রীদের থাকতে হবে হোয়াটসঅ্যাপের লেটেস্ট ভার্সানটি৷ শুধু তাই নয়, সঙ্গে থাকতে হবে ইন্টারনেট কানেকশন এবং ট্রেন নম্বর, পিএনআর নম্বরটি৷

এবার ফলো করুন নির্দিষ্ট স্টেপগুলিকে৷ নিজের স্মার্টফোন থেকে ‘Dialer’ অ্যাপ অন করে নিন৷ ৭৩৪৯৩৮৯১০৪ নম্বরটিকে ফোনেরক কনট্যাক্ট লিস্টে অ্যাড করুন৷ অ্যাড করার পর রিফ্রেস করে হোয়াটসঅ্যাপের কনট্যাক্ট লিস্টটিকে খুলুন৷ লাইভ ট্রেন স্টেটাস জানতে নম্বরটি (৭৩৪৯৩৮৯১০৪) থেকে ট্রেন নম্বরটি পাঠিয়ে দিন৷ এছাড়া, আপনি যদি পিএনআর স্টেটাস জানতে চান সেক্ষেত্রে পাঠাতে হবে পিএনআর নম্বরটি৷ এরপর মেকমাইট্রিপের ম্যাসেজ থেকে ট্রেনটির লেটেস্ট আপডেট জানতে পারবেন যাত্রীরা৷

অনেকেই হয়ত ম্যাসেজ পাঠানোর সঙ্গে সঙ্গে রিপ্লাই পাবেন না৷ যতক্ষণ না ব্লু রঙের টিকমার্ক দেখছেন ততক্ষণ পর্যন্ত রিল্পাই পাবেন না যাত্রীরা৷ তাই, অর্ধৈষ না হয়ে অপেক্ষা করুন৷ অনেক সময়ই এনকোয়ারির অত্যাধিক চাপ থাকে৷ হাজারো ম্যাসেজে ভরতি হয় চ্যাটবক্স৷ আর সে কারণে উত্তর আসতে হতে পারে সামান্য দেরী৷ তাই সময় হাতে নিয়ে রাস্তায় বেরোন৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।