নয়াদিল্লি: সাধারণ মানুষের কাছে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভোটার কার্ড। যে কোনও সরকারি ক্ষেত্র থেকে শুরু করে একধিক জায়গাতে ব্যবহার হয়ে থাকে এই কার্ডের। এমনকি অনেক জায়গাতে এই ভোটার কার্ড নাগরিকত্বের প্রমাণ হিসেবেও ব্যবহার করা হয়। নির্বাচনের ক্ষেত্রে ভোটার কার্ড অত্যন্ত প্রয়োজনীয়। অনেক সময় এই কার্ডে ভুল থাকলে গ্রাহকদের সংশোধন করতে হয় ভোটার কার্ড। তবে এবারে জানা গিয়েছে পুরনো কার্ড ছাড়াও সাধারণ মানুষজন পাবেন রঙিন ভোটার কার্ড।

তবে এই কার্ডের জন্য আবেদন করতে হবে। অনলাইনে এই কার্ডের জন্য আবেদন করা যাবে বলে জানা গিয়েছে। এই কার্ডের জন্য আবেদন করতে হলে প্রথমে nvsp (national voter’s service protal) ওয়েবসাইটে যেতে হবে গ্রাহকদের। হোম পেজে গিয়ে সেখান থেকে ভোটার পোর্টাল বক্সে ক্লিক করতে হবে। সেখান থেকে সাধারণ মানুষজনকে https://voterportal.eci.gov.in পোর্টালে যেতে হবে। সেখান থেকে পরবর্তী পেজে গিয়ে প্রার্থীদের পোর্টালে নিজেদের রেজিস্টার করতে হবে। নিজস্ব নতুন account খুলতে হবে প্রার্থীদের।

এরপরে প্রার্থীদের একটি ফর্মে নিজস্ব ছবি সহ বেশ কিছু তথ্য দিতে হবে। তারপরে তা সাবমিট করতে হবে। এই সাবমিট করা সংক্রান্ত সব তথ্য নিজেদের কাছে রেখে দিতে হবে। পরবর্তীকালে তা কাজে লাগতে পারে।

এই নতুন রঙিন ভোটার কার্ড এলে তা যে সাধারণ মানুষজনের কাছে আকর্ষণের হবে তা নিশ্চিত। বিগত কয়েক দশক ধরেই সাদা কালো ভোটার কার্ড হয়ে আসছে। সেখানে এই নয়া পরিবর্তন সাধারণের কাছে আকর্ষণের হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।